Header Ads Widget

পীরগঞ্জে মাছ বাজারে সিন্ডিকেট : ক্রেতারা প্রতারিত


শেখ সমশের আলী, পীরগঞ্জ (ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধি : পীরগঞ্জ পৌর এলাকার কলেজ হাটের মাছ বাজারে ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেটের কারণে প্রতিনিয়ত ক্রেতারা প্রতারিত হচ্ছে। মাছ বাজার সংলগ্ন দু’টি মাছের আড়ত রয়েছে। মালিকরা জেলেদের কাছ থেকে মাছ কেনার জন্যে কতিপয় দালাল নিয়োগ করেছে। সকালে ও বিকেলে জেলেরা দেশী প্রজাতির মাছ এ বাজারে বিক্রি করতে এলে, মাছের আড়তের দালালরা তড়ি-ঘড়ি করে জেলেদের কাছ থেকে মাছ কিনে নিয়ে আড়তে মজুত করে।
প্রতি কেজি মাছ ৫০/৮০ টাকা বেশি দরে আড়ত মালিকরা ফরিয়াদের কাছে বিক্রি করে। ফরিয়ারা ওই সব মাছ নিয়ে বাজারে বিক্রি করতে বসে। তারাও প্রতি কেজি মাছে ৮০/১০০ টাকা বেশি দরে বিক্রি করছে। ফলে ক্রেতারা দেশী প্রজাতির মাছ কিনতে গিয়ে প্রতি কেজি মাছের মূল্য অনেক বেশি পরিশোধ করতে হচ্ছে। সিন্ডিকেটের কারণে ক্রেতারা সরাসরি জেলেদের কাছ থেকে মাছ কিনতে পাড়ছে না।
ফলে অতিরিক্ত দাম দিয়ে ক্রেতারা ফরিয়াদের কাছ থেকে বাজারে মাছ কিনতে হচ্ছে। ক্রেতাদের মাছের প্রকৃত দামের চেয়ে কেজি প্রতি ১৫০-২০০ টাকা বেশি দরে কিনে আর্থিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার পাশাপাশি প্রতারিত হচ্ছে। এ সিন্ডিকেট প্রায় ১৫ বছর যাবৎ পীরগঞ্জ কলেজ বাজারে বলবৎ রয়েছে। 
এছাড়া নওগাঁও জেলার আত্রাই, ময়মনশিংহ, বরিশাল ও ভোলা জেলা থেকে এ আড়তে চালানী/সামুদ্রিক মাছ এ আড়তে আনা হলে, আড়তদাররা সিন্ডিকেট করে ওই সব মাছ চড়াও দামে ফরিয়াদে কাছে বিক্রি করছে। ফরিয়ারা এসব মাছ নিয়ে গ্রামে গঞ্জের হাট-বাজারে চড়াও দামে বিক্রি করছে।
এ আড়ত থেকে পীরগঞ্জ উপজেলার সবর্ত্র মাছের বাজার নিয়ন্ত্রণ করা হয়। এসব আড়ত মালিকরা কোন নিয়ম-কানুন মানেন না, এমনকি কোন মাছ কত টাকা কেজি দরে বিক্রি করছে তারও কোন তালিকা ঝুলানো নেই আড়তে। যা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনের পরিপন্থি।
বুধবার সকালে কলেজ বাজারের মাছ বাজারে মাছ কিনতে গিয়ে ক্রেতা মোঃ ইউসুফ আলী, শেখ সমশের আলী ও মাসুদ রানা জানান আড়ত মালিকদের সিন্ডিকেটের কারণে বেশি দামে মাছ কিনতে হচ্ছে। এসব মাছ ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা প্রয়োজন বলে তারা ক্ষোভ প্রকাশ করেন।