Header Ads Widget

পীরগঞ্জে কবরস্থান রক্ষার দাবিতে মানববন্ধন ও সমাবেশ


শেখ সমশের আলী, পীরগঞ্জ (ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধি : পীরগঞ্জ উপজেলার বীরহলি গ্রামে মানিকপীর কবরস্থান সহ অন্যান্য কবর রক্ষার দাবিতে শুক্রবার এলাকাবাসী মানববন্ধন ও সমাবেশ করেছে। কবরস্থানে মাটি খনন করে ৫ টি কবর ভাংচুর করা হয়েছে। এর প্রতিবাদে এলাকাবাসী শুক্রবার ২ সরকারি কর্মচারি সহ ৪ জনের বিরুদ্ধে কবরস্থানে মানববন্ধন করেছে। এই নিয়ে বীরহলি, ভেমটিয়া, সেতরাই, বেতুরা ও চাপোড় গ্রামের ধর্মপ্রাণ মানুষের মধ্যে ক্ষোভ ও উত্তেজনা বিরাজ করছে। জানা গেছে, ৬নং পীরগঞ্জ ইউনিয়নের সহকারি ভূমি উন্নয়ন কর্মকর্তা আবু রায়হান, পীরগঞ্জ সহকারি কমিশনার ভূমি অফিসের শিকল বাহক (চেইন ম্যান) আব্দুল কুদ্দুস, বীরহলি গ্রামের মোঃ ইব্রাহিম ও উপজেলা পরিষদ পুকুর খননের ঠিকাদার মটর শ্রমিক নেতা মোঃ রফিকুল ইসলাম অসৎ উদ্দেশ্যে এবং প্রশাসনের ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্যে কবরস্থানে মাটি কাটা এস্কেভেটর/ভেকু গাড়ি বসিয়ে মাটি খনন করে। অপরিকল্পিত ভাবে ও শত বছরের পুরাতন কবরস্থানে মাটি কাটা এস্কেভেটর/ভেকু গাড়ি বসিয়ে মাটি কেটে কবরস্থান বিলীন করার প্রতিবাদে ৫ গ্রামের মানুষ ফুঁসে উঠেছে। কবরস্থানে প্রায় ১০০ ফিট দৈর্ঘ্য ও ২০ ফিট গভীর করে মাটি খনন করায় অবশিষ্ট কবরগুলো যেকোন সময় ভেঙ্গে পড়তে পারে বলে এলাকাবাসী ধারণা করছে। এসব মাটি উল্লেখিত ব্যক্তিরা কিছু উপজেলা পরিষদের পুকুরের কাজে ব্যবহার করছে এবং সিংহভাগ মাটি ইট ভাটার মালিকদের কাছে বিক্রি করে লাভবান হচ্ছে বলে জানা গেছে। স্থানীয় লোকজন মাটি কাটা এস্কেভেটর/ভেকু মেশিনটি আটক করেছে। শুক্রবার বীরহলি, ভেমটিয়া সহ ৫ গ্রামের শত শত নারী পুরুষ কবর ভাংচুর করার প্রতিবাদে মানিকপীর কবরের পাশে মানববন্ধন করেন এবং ওই চার ব্যক্তির দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন। বিষয়টি স্থানীয় সংবাদকর্মী জেলা প্রশাসক, ঠাকুরগাঁওকে মুঠোফোনে অবগত করেন। জেলা প্রশাসকের নির্দেশে রাণীশংকৈল উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দ্রুত ঘটনাস্থলে আসেন। রানীশংকৈল উপজেলার ইউএনও ঘটনার সত্যতা পেয়ে ওই ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা সহ দ্রুত কবরস্থান সংস্কার করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন। ফলে, স্থানীয় লোকজন শান্ত হয়। এই ব্যাপারে ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক মাহবুবুর রহমান জানান, আমি দ্রুত অফিসার পাঠাচ্ছি এবং অপরাধীদের বিরুদ্ধে শাস্তি মূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। অপরদিকে রাণীশংকৈল উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সোহেল সুলতান জুলকার নাইম কবির ইষ্টিভ জানান, দ্রুত কবরস্থান সংস্কার করা হবে এবং অপরাধীদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।