Home » » পীরগঞ্জে সারের কৃত্রিম সংকট ॥ কৃষক হতাশ

পীরগঞ্জে সারের কৃত্রিম সংকট ॥ কৃষক হতাশ

চিলাহাটি ওয়েব ডটকম : 18 September, 2022 | 4:21:00 PM

শেখ সমশের আলী, পীরগঞ্জ (ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধি : ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জ উপজেলার পৌর এলাকা সহ ১০টি ইউনিয়নে সার বিতরণে অব্যবস্থাপনা ও ব্যবসায়ীরা কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করেছে। কৃষকরা ব্যবসায়ীদের কাছে বার বার গিয়েও সার পাচ্ছে না। ফলে কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার পাশাপাশি হতাশ হয়ে পড়েছে। উপজেলার কৃষি অফিসের তথ্য মতে পীরগঞ্জ উপজেলায় মন্ত্রণালয়ের অনুমোদিত বিসিআইসি ১১ জন সার ডিলার রয়েছে। এছাড়া বিএডিসি’র ২৫ জন ডিলার ও ৫৫ জন লাইসেন্স ধারী খুচরা সার বিক্রেতা রয়েছে। ২০২২ সালের সেপ্টেম্বর মাসে বিসিআইসি প্রতি ডিলার সরকারী ভাবে ইউরিয়া ৭৭৫, টিএসপি ২২২, এমওপি অতিরিক্ত সহ ৩৬৩ ও ডিএপি অতিরিক্ত সহ ৮১৬ মেঃটঃ সার উত্তোলন করেছে। পৌর এলাকা সহ ১১ জন বিসিআইসি ডিলাররা সারের কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করেছে এবং মুখ দেখে চড়াও দামে বিক্রি করছে বলে ভোমরাদহ ইউনিয়নের কৃষক আলতাফুর রহমান রবিবার এ প্রতিনিধি কে অভিযোগ করেন। বিসিআইসি ডিলাররা ও উপজেলা কৃষি অফিসের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের যোগ সাজোসে সারের কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি হয়েছে। সার মজুদ থাকা স্বত্বেও কৃষক সার কিনতে গেলে, এসব ডিলাররা বলেন সার নেই। ২/১ দিন পরে দেখা করেন বলে কৃষক কে জানিয়ে দেন। এছাড়া উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তারা মুখ দেখে সারের স্লীপ দিচ্ছেন কৃষককে। চলতি আমন মৌসুমে ধান উৎপাদনে এখনও শতভাগ কৃষক সার পায়নি। এছাড়া আম বাগানের মালিকরা বাগানে সার দেওয়ার সময় পেরিয়ে গেলেও অনেক মালিকরা এখনও পর্যন্ত তাদের বাগানে সার দিতে পারেননি। অপর দিকে অন্যান্য প্রয়োজনীয় প্রতিষ্ঠান ও তাদের চাহিদা অনুযায়ী সার না পাওয়ার অভিযোগ করছেন কৃষি কর্মকর্তার কাছে। প্রতিদিন শতশত কৃষক ওই সব ডিলারের কাছে এমওপি সার ও অন্যান্য সারের জন্যে দ্বারে দ্বারে ঘুরছে। রবিবার উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও কৃষি অফিসার কার্যালয়ে অনেক কৃষক সার না পাওয়ার বিষয়ে অভিযোগ করতে আসেন। এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রাজেন্দ্র নাথ রায় জানান, বর্তমানে এমওপি সারের চাহিদা বেশি এবং সরবরাহ কম। তবে এ সংকট অচিরেই কেটে যাবে বলে তিনি এ প্রতিনিধিকে জানান।