Home » » ট্রেন পরিচালকের সততায় ১০ মাস পর হারিয়ে যাওয়া ল্যাপটপ ফেরত পেলেন মালিক

ট্রেন পরিচালকের সততায় ১০ মাস পর হারিয়ে যাওয়া ল্যাপটপ ফেরত পেলেন মালিক

চিলাহাটি ওয়েব ডটকম : 22 October, 2021 | 12:38:00 AM

আপেল বসুনীয়া,চিলাহাটি ওয়েব : অবশেষে ট্রেন পরিচালকের সততায় ১০ মাস পর হারিয়ে যাওয়া ল্যাপটপ ফেরত পেলেন মালিক। ঢাকাগামী আন্তঃনগর নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনের এসি চেয়ারকোচে সান্তাহার জংশন রেলস্টেশন থেকে কোর ডেভেলস লিমিটেডের চেয়ারম্যান সফটওয়্যার প্রকৌশলী ট্রেনযাত্রী মাহাবুব শুভ যাচ্ছিলেন। ঢাকার বিমানবন্দর স্টেশনে নামার সময় ভুলক্রমে ট্রেনে ফেলে রেখে গিয়েছিলেন ল্যাপটপের ব্যাগটি। ট্রেন ছেড়ে যাওয়ার পর কমলাপুর স্টেশনে দ্রুত লোকজন পাঠিয়েও ব্যাগটি পাওয়া যায়নি। প্রকৌশলী মাহবুব শুভ ধরে নিয়েছিলেন, কোনো ট্রেন যাত্রীই তার ল্যাপটপটি নিয়ে চলে গেছে। সুতরাং আর পাওয়া যাবে না।
হঠাৎ দীর্ঘ ১০ মাস পর ট্রেনে হারানো ল্যাপটপসহ ব্যাগটি পেয়ে খুশিতে আত্মহারা সফটওয়্যার প্রকৌশলী ট্রেনযাত্রী মাহাবুব শুভ। মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) বিকেলে ঢাকার কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন ম্যানেজার সোহেল সারওয়ার এর মাধ্যমে নীলসাগর এক্সপ্রেসের ট্রেন পরিচালক (গার্ড) শহিদুল ইসলাম ল্যাপটপের মালিক মাহাবুব শুভর হাতে হারানো ল্যাপটপসহ ব্যাগটি তুলে দেন। সততার পরিচয় বহনকারী সেই আন্তঃনগর নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনের পরিচালক শহিদুল ইসলাম পাকশি বিভাগীয় রেলওয়ের আওতায় পার্বতীপুর হেড-কোয়ার্টারের দায়িত্বে রয়েছেন।
কমলাপুর বাণিজ্যিক কর্মকর্তা (ডিসিও) শওকত জামিল মোহসী চিলাহাটি ওয়েব ডটকমকে জানান, ১০ মাস ধরে সততার পরিচয় দিয়ে সামাজিক গণমাধ্যমে বিভিন্নভাবে খোঁজ করেছেন, প্রকৃত ওই ল্যাপটপ মালিকের। ল্যাপটপের ছবি দিয়ে রেলওয়ের গ্রুপে একটি ছবি পোস্ট করেন ওই ট্রেন পরিচালক। পরবর্তী সময়ে বিভিন্নভাবে যোগাযোগের চেষ্টা করে,হারিয়ে যাওয়া ল্যাপটপ মালিককে খুঁজে পান।
১০ মাস পর পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের পার্বতীপুর হেডকোয়ার্টারের ট্রেন পরিচালক শহিদুল ইসলাম ল্যাপটপটি প্রকৃত মালিকের হাতে তুলে দিয়ে এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। অনুভূতি জানিয়ে প্রকৌশলী মাহাবুব শুভ চিলাহাটি ওয়েব ডটকমকে জানান, আমি আশা ছেড়ে দিয়েছিলাম সত্যিই! বিশ্বাসই হয়নি যে ফিরে পাব ল্যাপটপটি। লোভ বিসর্জন দেওয়া ভালো মানুষ এখনো আছে। তিনি আরও বলেন, আমার ভালো লাগছে, কারণ আমার অনেক গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্টসহ আমি ল্যাপটপটি ফিরে পেয়েছি, সত্যিই আমি মুগ্ধ, সততার পরিচয় দেখে।