Home » » দীর্ঘদিনের বন্ধ কপাট খুলছেঃ বিরামপুরে ২৩৩ জ্ঞানগৃহ আবার হবে মুখরিত

দীর্ঘদিনের বন্ধ কপাট খুলছেঃ বিরামপুরে ২৩৩ জ্ঞানগৃহ আবার হবে মুখরিত

চিলাহাটি ওয়েব ডটকম : 11 September, 2021 | 11:24:00 PM

মিজানুর রহমান মিজান, বিরামপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি,চিলাহাটি ওয়েব :করোনার মহামারীর কারনে গত বছর ১৭ মার্চ থেকে দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। দীর্ঘ প্রতিক্ষার রোববার (১২ সেপ্টেম্বর) থেকে আবারো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পাঠ দান প্রদানের সীদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এরই মধ্যে উপজেলার সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পাঠদানের উপযোগী করা হয়েছে। কর্তৃপক্ষের দাবি দীর্ঘদিন কন্ধের কারনে শুনশান নিবর ক্যাম্পাস আবার মুখরিত হবে। 
 বিরামপুর প্রাথমিক ও মাধ্যমিক অফিসের তথ্যমতে, উপজেলায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে ১১৬টি, কিন্ডারগার্টেন স্কুল রয়েছে ৪৫, শিশু নিকেতন রয়েছে ১টি, মাধ্যমিক ও নিম্মমাধ্যমিক বিদ্যালয় রয়েছে ৪১টি, কলেজ রয়েছে ৮টি, দাখিল মাদরাসা রয়েছে ২২টি।উপজেলায় প্রাথমিকে শিক্ষক রয়েছে ৫৭৭জন,তাদের মধ্যে মাতৃত্বকালিন ছুটি থাকায় ২৪জন শিক্ষক করোনা ভাইরাসের টিকা গ্রহণ করতে পারেনি। সরেজমিনে, দিনাজপুর জেলার বিরামপুর উপজেলার বেশ কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গিয়ে দেখা গেছে,‘ শনিবার সকাল থেকেই চলছে ক্লাসরুম পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার কাজ। কোন বিদ্যালয়ে টয়লেট,আবার কোথায় ক্লাসরুমের বেঞ্চের ধুলার আস্তরন পানিতে ধুয়ে পরিস্কার করা হচ্ছে। অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মেঝেগুলো পাকা না থাকায় উই পোকার খেয়ে ফেলেছে বেঞ্চের গোড়া। উপজেলার কাটলা মেধাবিকাশ স্কুলের পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী তানভীর আহম্মেদ বলেন,‘র্দীঘ ছুটির পর আমরা আবারো স্কুলে গিয়ে ক্লাস করতে পারব এটা ভাবতেই আনন্দ লাগছে। আবার সহপাঠিদের সঙে গেলা করব,হই হোল্লর করব। এরই মধ্যে বাবার মোবাইল ফোনে বেশ কয়েক বন্ধুর সঙে কথা হয়েছে।তারা সবাই খুশি। তারভীরের সহপাঠি দীপ রায় বলেন,‘ বিদ্যালয় খোলার আনন্দে ভালো লাগছে কিন্তু স্কুল বন্ধের পর থেকে স্কুল ড্রেস ব্যবহার না থাকায় কখন যে ছোট হয়েগেছে বুঝতে পারিনী।ভ্যানচালক বাবার পক্ষে এই মুহুত্বে ড্রেস তৈরী করে দেওয়া অনেকটা কঠিন কাজ। ঢাকা কিন্ডার গার্টেন অ্যাসোসিয়েশনের বিরামপুর উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মো.মাহাবুর রহমান বলেন,‘ সরকার বিদ্যালগুলো খোলার ঘোষণায় ইতোমধ্যে উপজেলার কিন্ডার গার্টেন স্কুলগুলো ক্লাসরুমগুলো পাঠদানের জন্য উপযোগী করে তুলেছেন।বিদ্যালয়গুলোতে স্বাস্থ্যবিধি মানাতে বেশ কিছু কর্মসূচী নেয়া হয়েছে।’ বিরামপুর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মিনারা বেগম বলেন,‘ উপজেলায় ১১৬ টি সরকারি,৪৫টি কিন্ডারগার্টেন স্কুল রয়েছে। 
সকল বিদ্যালয়ের প্রধানগণকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিদ্যালয়গুলো পরিচালানা করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আমরা প্রতিদিনই মনিটরিং করব এবং প্রতিটি বিদ্যালয় পরিদর্শন করব। জানতে চাইলে বিরামপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) পরিমল কুমার সরকার বলেন,‘করোনার অতিমারির কারনে দেশের সকল বন্ধ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আগামীকাল রোববার খুলে দেওয়ার সীদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। আমরা প্রাথমিক,মাধ্যমিক ও কলেজগুলোর প্রধানদের সঙে কথা বলেছি। এইর মধ্যে প্রতিষ্ঠানগুলোতে কর্মরত শিক্ষকদের ৯৮ শতাংশ করোনা টিকাগ্রহণ করেছেন। আমরা প্রতিটি বিদ্যালয় মনিটরিং এবং পরিদর্শন করব যাতে কোন প্রকার সমস্যা সৃষ্টি না হয়।