Home » » ঠাকুরগাঁওয়ে কঠোর বিধিনিষেধেও বসেছে ছাগলের হাট

ঠাকুরগাঁওয়ে কঠোর বিধিনিষেধেও বসেছে ছাগলের হাট

চিলাহাটি ওয়েব ডটকম : 06 July, 2021 | 11:15:00 PM

আজম রেহমান.ঠাকুরগাঁও ব্যুরো,চিলাহাটি ওয়েব : সরকার করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সারাদেশে কঠোর বিধিনিষেধ দিয়েছে। এর মধ্যেই ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার খোঁচাবাড়ি হাটে গরুর হাট না বসলেও ছাগলের হাট বসেছে। ৬জুলাই বিধিনিষেধ উপেক্ষা করে করোনা স্বাস্থ্যবিধি না মেনে খোঁচাবাড়ি হাটে ছাগল ক্রেতা-বিক্রেতাদের সমাগমে জমে উঠেছে। 
 সরেজমিনে দেখা যায়, আজ বিধিনিষেধের ষষ্ট দিনে ছাগলের হাট বসিয়ে কেনা-বেচা করছিল। ক্রেতা-বিক্রেতাদের জটলা ছিলো চোখে পড়ার মতো। হাটের পশ্চিমাংশে বসেছে চা-পানের দোকান। পাশেই কাঁচাবাজার মাছের বাজারেও দেখো গেছে প্রচুর লোক সমাগম। অনেকের মুখে মাস্ক থাকলেও সেটা ছিলো থুতনির নিচে। ছাগল কিনতে আসা নারগুর এলাকার শফিকুল আলম বলেন, ছাগল কিনতে আসছিলাম কিন্তু বাজারে ছাগলের দাম অনেক বেশি, তাই ভাবছি বাড়ি চলে যাবো। তাছাড়া হাটে স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না। মাস্কবিহীন অনেক লোক চলাচল করছে। খোঁচাবাড়ি হাটের দায়িত্বপ্রাপ্তরা জানান, আমরা বিক্রেতাদের নিষেধ করা সত্ত্বেও অভাব অনটন, সামনে ঈদ নানা অজুহাতে তাদের গবাদি পশু নিয়ে হাটে আসছেন। ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. রাকিবুল ইসলাম চয়ন বলেন, ‘দেশের চলমান এমন পরিস্থিতিতে যদি গবাদি পশুরহাট বসে তবে করোনা সংক্রমণের আশংকা অনেকাংশেই বেড়ে যাবে।’ ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, বিধিনিষেধে সকল প্রকার গরু ছাগলের হাট বন্ধ করা হয়েছে। যারা আইন অমান্য করে হাট পরিচালনা করছে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। তিনি এ সময় সকলকে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার পরার্মশ দেন।ঠাকুরগাঁওয়ে কঠোর বিধিনিষেধেও বসেছে ছাগলের হাট আজম রেহমান.ঠাকুরগাঁও:: সরকার করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সারাদেশে কঠোর বিধিনিষেধ দিয়েছে। এর মধ্যেই ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার খোঁচাবাড়ি হাটে গরুর হাট না বসলেও ছাগলের হাট বসেছে। ৬জুলাই বিধিনিষেধ উপেক্ষা করে করোনা স্বাস্থ্যবিধি না মেনে খোঁচাবাড়ি হাটে ছাগল ক্রেতা-বিক্রেতাদের সমাগমে জমে উঠেছে। সরেজমিনে দেখা যায়, আজ বিধিনিষেধের ষষ্ট দিনে ছাগলের হাট বসিয়ে কেনা-বেচা করছিল। ক্রেতা-বিক্রেতাদের জটলা ছিলো চোখে পড়ার মতো। হাটের পশ্চিমাংশে বসেছে চা-পানের দোকান। পাশেই কাঁচাবাজার মাছের বাজারেও দেখো গেছে প্রচুর লোক সমাগম। অনেকের মুখে মাস্ক থাকলেও সেটা ছিলো থুতনির নিচে। 
ছাগল কিনতে আসা নারগুর এলাকার শফিকুল আলম বলেন, ছাগল কিনতে আসছিলাম কিন্তু বাজারে ছাগলের দাম অনেক বেশি, তাই ভাবছি বাড়ি চলে যাবো। তাছাড়া হাটে স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না। মাস্কবিহীন অনেক লোক চলাচল করছে। খোঁচাবাড়ি হাটের দায়িত্বপ্রাপ্তরা জানান, আমরা বিক্রেতাদের নিষেধ করা সত্ত্বেও অভাব অনটন, সামনে ঈদ নানা অজুহাতে তাদের গবাদি পশু নিয়ে হাটে আসছেন। ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. রাকিবুল ইসলাম চয়ন বলেন, ‘দেশের চলমান এমন পরিস্থিতিতে যদি গবাদি পশুরহাট বসে তবে করোনা সংক্রমণের আশংকা অনেকাংশেই বেড়ে যাবে।’ ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, বিধিনিষেধে সকল প্রকার গরু ছাগলের হাট বন্ধ করা হয়েছে। যারা আইন অমান্য করে হাট পরিচালনা করছে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। তিনি এ সময় সকলকে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার পরার্মশ দেন।