Home » » কিশোরগঞ্জ থানা ক্যাম্পাসে নির্ভয়ে গড়ে উঠেছে শামুক খোলপাখির অভয়াশ্রম

কিশোরগঞ্জ থানা ক্যাম্পাসে নির্ভয়ে গড়ে উঠেছে শামুক খোলপাখির অভয়াশ্রম

চিলাহাটি ওয়েব ডটকম : 13 October, 2020 | 7:31:00 PM

মিজানুর রহমান,কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি,চিলাহাটি ওয়েব : মডেল থানার হাতছানি, অপরাপর সবুজ বৃক্ষরাজির অপূর্ব সমাহার জীববৈচিত্রের এক অপরুপ সৌন্দর্য্য যেন বহুগুন বাড়িয়ে দিতে নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ থানা ক্যাম্পাস যেন নবরুপে সেজেছে শামুক খোল পাখির অভয়ারণ্যে। মানুষ শুধু নিরাপদ আশ্রয় খোঁজে তা নয়, তীক্ষè জ্ঞান সম্পন্ন শামুক খোল পাখি নিরাপদ আশ্রয় খোঁজে ঠাঁই গেঁড়েছেন কিশোরগঞ্জ থানা ক্যাম্পাসের চার পাশসহ বাজারের বেশ কয়েকটি গাছে। ঝড়-ঝঞ্ঝা কে উপেক্ষা করে নিরাপদ প্রজননের মাধ্যমে দিন দিন বাড়ছে পাখির সংখ্যা। মা পাখিরা ব্যস্ত বাচ্চাদের সামলাতে। আবার বাবা পাখিরা বিভিন্ন জলাশয় থেকে দিনভর খাবার সংগ্রহে ব্যস্ত সময় পার করছে। আর অন্য পাখিদের সময় কাটছে নিজেদের মধ্যেও খুনসুটি করে। চোখের সামনে ঝাঁকে ঝাঁকে উড়ছে শামুকখোল পাখি। পাখিদের ডাকে শান্তি আসে মানুষের মনে। পূর্ব দিগন্তে সূর্য উঁকি দিলে পাখিদের উড়া-উড়ি, কলকাকলি আর পাখার ঝাপটানিতে ঘুম ভাঙছে মানুষের। যান্ত্রিক নগরায়ন আর ব্যস্ততম শহরে হাজারো মানুষের পদচারণা, পাখপাখালির কল কাকলি, প্রকৃতির অপরূপ লীলা নিকেতনে, আকাশে সাদা মেঘের ভেলা, সবুজের নৈসর্গিক মনোরম দৃশ্য এক মোহনীয় পরিবেশের সৃষ্টি করে জীবনানন্দ কবিতার মতোই যেন থানা ক্যাম্পাস পাখি রাজ্য। দৃষ্টিনন্দন চিত্রাকর্ষক এমন দৃশ্য পাখি প্রেমী তাড়িত মনকে ক্ষণিকের জন্য হলেও সুরের মুর্ছনায় আবেগময় করে তুলছে। আবার সাঁঝের বেলায় ঝাঁকে ঝাঁকে পাখি উড়ার দৃশ্য প্রকৃতি সেজে ওঠে ভিন্ন সাজে। গত কয়েক বছর ধরে স্থানীয়দের ভালোবাসা ও থানা-পুলিশের সখ্যতায় প্রজনন মৌসুমে পাখিগুলো আসে আর বাচ্চা বড় হলে দলবেঁধে উড়তে যায়। এবারও বেশিভাগ পাখি বাচ্চা দিয়েছে। সরেজমিনে দেখা গেছে থানা চত্বরে সুবিশাল শিমুল, আম, তেতুল সহ বাজারে বেশ কয়েকটি কড়াই গাছের সবুজ শাখার আঁকা বাঁকা ডালে ধূসররঙের কয়েক হাজার শামুক খোল পাখি বাসা বেঁধেছে। পাখির কলকাকলি, খুনসুটি উড়াও এ যেন পাখির রাজ্য। এ ব্যাপারে থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ আব্দুল আউয়াল জানান, বন-জঙ্গল উজাড় হওয়ার কারণ এ প্রজাতির পাখি বিলুপ্ত প্রায়। তিস্তা সেচ ক্যানেল সহ উপজেলায় বেশকিছু বিল থাকায় পাখিগুলো এখানে নিরাপদ আশ্রয়ের জন্য ঠাঁই নিয়েছে। পাখি শিকার কঠোর ভাবে দমন করা হয়েছে, শিকারি যাতে পাখিগুলো শিকার করতে না পারে এ জন্য থানা প্রশাসনের পক্ষ থেকে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।