Home » » ঠাকুরগাঁওয়ে দুই কিশোরীকে ধর্ষণ আটক- ২

ঠাকুরগাঁওয়ে দুই কিশোরীকে ধর্ষণ আটক- ২

চিলাহাটি ওয়েব ডটকম : 19 August, 2020 | 4:46:00 PM

মাহমুদ আহসান হাবিব,ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি,চিলাহাটি ওয়েব : ঠাকুরগাঁওয়ে পূর্ব পরিচয়ের সুত্র ধরে দুই কিশোরীকে মোবাইলে ডেকে নিয়ে রাতভর ধর্ষণের অভিযোগে দুই ধর্ষককে গ্রেফতার করেছে পীরগঞ্জ থানা পুলিশ।
বুধবার (১৯ আগষ্ট) ভোর রাতে উপজেলার সেনুয়া ও পীরগঞ্জ থেকে তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে তাদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় পীরগঞ্জ থানা পুলিশের তদন্ত কর্মকর্তা খায়রুল আনাম ডন এর নেতৃত্বে গঠিত একটি চৌকষ টিম। এর আগে দুই কশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে পীরগঞ্জ থানায় ৫ জনের নাম উল্লেখ করে একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন ধর্ষিত কিশোরীর বাবা আবু সুলতান। আসামীরা হলেন- পীরগঞ্জের সেনুয়া বানিয়া পাড়ার মো: আলতাফুর রহমানের ছেলে নয়ন ইসলাম (২২) ও ভোমরাদহ চিলাছাপা এলাকার মো: ওসমান আলীর ছেলে মো: সবুজ (২০)।
মামলার অন্য আসামীরা হলেন- হিরেন চন্দ্র শীল(২৬), ফরিদ হোসেন(২২) ও সেলিম(২২)। পুলিশ সুত্রে জানা যায়, ময়মনসিংহে এক সুতার ফ্যাক্টরীতে চাকুরী করার সুবাদে ভোলাপাড়া, রাণীশংকৈলের বাসিন্দা কনক(১৭)’র (ছন্দনাম) সাথে পার্শ্ববর্তী পীরগঞ্জ উপজেলার নয়নের পরিচয় হয়। এদিকে গত জানুয়ারী মাসে কনক চাকুরী ছেড়ে দিয়ে তার নিজ বাসায় অবস্থান করে । পুর্ব পরিচয়ের সুবাদে নয়ন ভালো জায়গায় কনককে চাকুরী পাইয়ে দেওয়ার কথা বলে বিভিন্ন সময় তাদের বাসায় যাতায়াত করে ও মোবাইলে যোগাযোগ রাখে। ঘটনার দিন গত ১৭ আগষ্ট বিকেলে নয়ন মোবাইলে কনককে পীরগঞ্জে আসতে বলে।
নয়নের ফোন পেয়ে কনক তার প্রতিবেশি এক মেয়ে কণা(১৪)কে (ছদ্মনাম) সাথে পীরগঞ্জে আসলে চৌরাস্তায় নয়ন ও তার চারবন্ধু সবুজ(গ্রেফতার), হিরেন চন্দ্র শীল, ফরিদ হোসেন ও সেলিম তাদের সাথে মিলিত হয়। পরে কথাবার্তা সেরে কনক মোবাইলের ব্যাটারী কিনতে চাইলে নয়ন তাকে বলে সেনুয়া বাজারে তার পরিচিত দোকান রয়েছে সেখান থেকে কম দামে ব্যাটারী কিনতে পারবে বলে তারা সেনুয়া যায়। সেখান থেকে পীরগঞ্জে ফিরতে সন্ধ্যা হয়ে যায়। এদিকে নয়ন তাদের ইজিবাইকে করে নিজের বাসায় নিয়ে যাওয়ার কথা বলে ঘুমের ঔষধ মিশিয়ে জুস ও চিপস খেতে দেয়।
 এসব খাওয়ার পর কনক ও কণার মধ্যে ঘুম ঘুম ভাব হলে তাদের সবুজের বাসায় নিয়ে একদফা ধর্ষণ করা হয়। আবার সেখান থেকে তাদের নিয়ে ভোমরাদহ এলাকার একটি আখ ক্ষেতে নিয়ে রাতভর তাদের উপর পাশবিক নির্যাতন চালায় নয়ন ও তার বন্ধুরা। ভোর রাতে ভোমরাদহ স্টেশনের কাছে রেললাইনের পাশে তাদের ফেলে পালিয়ে যায় তারা। পরে মুমুর্ষ অবস্থায় কনক ও কণা কোনরকম একটি ইজিবাইক ভাড়া করে নিজ বাসায় ফিরে অভিভাবকদের বিষয়টি জানালে কনকের বাবা বাদী হয়ে পাঁচজনের নাম উল্লেখ করে পীরগঞ্জ থানায় গত ১৮ আগষ্ট একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করে।
ধর্ষণের অভিযোগে দুই যুবককে গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে পীরগঞ্জ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) ও মামলার আইও খায়রুল আনাম ডন জানান, রাণীশংকৈল উপজেলার দুই কিশোরীকে ফুসলিয়ে বাড়ী থেকে পীরগঞ্জে ডেকে এনে বিভিন্ন স্থানে নিয়ে রাতভর ধর্ষনের অভিযোগ পাওয়ার সাথে সাথে আসামীদের গ্রেফতারে মাঠে নামে পুলিশ। তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে ভোর রাতেই মামলার ১ ও ২ নং আসামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকী আসামীদের ধরতে চেষ্টা চলছে।