Home » » পার্বতীপুরের মসজিদের ঈমাম-মোয়াযজেমদের নয়, মসজিদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর ঈদের উপহার এসেছে

পার্বতীপুরের মসজিদের ঈমাম-মোয়াযজেমদের নয়, মসজিদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর ঈদের উপহার এসেছে

চিলাহাটি ওয়েব ডটকম : 03 June, 2020 | 11:23:00 PM

বদরুদ্দোজা বুলু,পার্বতীপুর প্রতিনিধি,চিলাহাটি ওয়েব : পার্বতীপুরের মসজিদের ঈমাম ও মোয়াযজেমদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঈদের উপহার আসেনি। শুধুমাত্র মসজিদের জন্য ৫ হাজার টাকা হিসেবে সরকারী ইসলামিক ফাউন্ডেশনের ১শ’ ২২ কোটি ২ লাখ ১৫ হাজার একটি চিঠি পেয়েছি। সে মোতাবেক ঈদের আগেই বিতরণ করা হয়েছে বলে গতকাল বুধবার সন্ধ্যে ৬টার দিকে মোবাইল ফোনে পার্বতীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহানাজ মিথথুন মুন্নী তিনি বলেন, ঈমাম ও মোয়াযজেমদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর ঈদের উপহার আসেনি। এব্যাপারে পার্বতীপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হাফিজুল ইসলাম প্রামানিক এ প্রতিবেদককে বলেন মসজিদের জন্য ঈদের আগেই মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঈদের উপহার ৫ হাজার করে টাকা দেয়া হয়েছে। ঈমাম ও মোয়াযজেমদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঈদের উপহার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন ওই উপহার পার্বতীপুর উপজেলায় পাওয়া যায়নি। পার্বতীপুরের ইসলামিক ফাউন্ডেশনের দায়িত্বরত আব্দুল কাদের জানান, ঈমাম ও মোয়াযজেমদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঈদের উপহার পাওয়া যায়নি। যে ৫ হাজার টাকা বিতরণ হয়েছে তা মসজিদের জন্য। এদিকে, দিনাজপুরের একটি সরকারী সূত্র থেকে জানা যায়, দিনাজপুর জেলার তালিকাভূক্ত মোট ৬,৮০৮টি মসজিদের প্রত্যেকটির জন্য ৫,০০০/- টাকা হারে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অনুদান হিসেবে পাওয়া গিয়েছে। এ অর্থ গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট মসজিদের ইমাম, সভাপতি এবং সম্পাদক, এই তিনজনের মধ্যে কমপক্ষে দুই জনের স্বাক্ষর এবং মসজিদের নাম-ঠিকানা ও অর্থ গ্রহণকারী দুই জনের নাম-ঠিকানাসহ মসজিদে অর্পিত দায়িত্ব, ইত্যাদি উল্লেখপূর্বক স্থানীয় জনপ্রতিনিধির দেয়া প্রত্যয়নপত্র প্রয়োজন হবে। এই ৫ হাজার টাকার বিষয়ে মসজিদ কমিটি ও ঈমাম ও মোয়াযজেমদের মধ্যে মনোমালিন্য এখনও চলমান। ইতোমধ্যে অনেক মসজিদের কমিটিকে ভুল বুঝিয়ে ঈমাম ও মোয়াযজেমের মধ্যে ওই ৫ হাজার টাকা গ্রহন করেছেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন ঈমাম জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ভাষনে বলেছেন ঈমাম ও মোয়াযজেমের ঈদ উপহারের কথা। তাহলে ঈদ উপহার পেলাম না কেন ?