Home » , » ডিমলায় ভুল চিকিৎসায় প্রসূতির মৃত্যু

ডিমলায় ভুল চিকিৎসায় প্রসূতির মৃত্যু

চিলাহাটি ওয়েব ডটকম : 20 April, 2020 | 9:03:00 PM

মাজহারুল ইসলাম লিটন,ডিমলা প্রতিনিধি,চিলাহাটি ওয়েব : নীলফামারীর ডিমলায় লাইফ কেয়ার হসপিটাল এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে ভুল চিকিৎসায় প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ। উপজেলা সদরের প্রশাসনের নাকের ডগায় অবৈধভাবে গড়ে ওঠা লাইফ কেয়ার হসপিটাল এন্ড ডায়াগণষ্টিক সেন্টারে গত শনিবার সন্ধায় উপজেলার মধ্য কুমাড়পাড়া গ্রামের আশরাফ আলীর স্ত্রী নুবিনা বেগমকে প্রসব বেদনা নিয়ে ভর্তি করা হয়।
ওইদিন রাতে ক্লিনিক কতৃপক্ষ প্রসূতির স্বাস্থ্য পরীক্ষা না করেই সিজার করে বাচ্চা প্রসব করালে প্রসুতির মৃত্যু হয়। এ বিষয়ে মামলার প্রস্তুতি চলছে। সোমবার প্রসূতির স্বামী আশরাফ আলী অভিযোগ করে বলেন, আমার স্ত্রীকে লাইফ কেয়ার হসপিটাল এন্ড ডায়াগণষ্টিক সেন্টারে প্রসব বেদনা নিয়ে ভর্তি করার পর এবং সীজার করার আগে রক্তের হিমোগ্লোবিন, হেপাটাইটিস বি, প্রেসার পরিমাপ, ইসিজি, আল্ট্রাসনোগ্রাফি কিছুই পরীক্ষা না করে তারা আমার স্ত্রীকে সীজার করার জন্য সরাসরি অপারেশন থিয়েটারে ঢোকান। ক্লিনিকের ডাঃ আইনুল হক সীজারে বাচ্চা প্রসব করার পর ভুল চিকিৎসায় আমার স্ত্রীর শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে। এবং রোববার রাত ১১টায় আমার স্ত্রীর মৃত্যু হওয়ার পর ক্লিনিকের লোকজন তরিঘরি করে আমার স্ত্রীকে রংপুর নিয়ে যেতে বলেন। রোগীর মৃত্যুর পর ক্লিনিক কতৃপক্ষ আমাদের করোনা ভাইরাসের কারনে প্রশাসনিক ভয় দেখিয়ে বিভিন্ন হুমকি ধামকি দিয়ে তরিঘরি করে লাশ নিয়ে যেতে বলেন। এবং তারাই একটি এ্যাম্বুলেন্স ডেকে এনে লাশটি বাড়িতে পাঠিয়ে দেন। আমি আমার স্ত্রীর মৃত্যুর বিষয়ে ক্লিনিক কতৃপক্ষ ও ডাক্তারের বিরুদ্ধে মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছি।
এ ব্যাপারে ক্লিনিকের একাংশের মালিক মতিয়ার রহমান ক্লিনিকে রোগীর মুত্যুর বিষয়টি অস্বিকার করে বলেন, সিজারের পরে রোগীর অবস্থার অবনতি হলে আমরা তাকে রংপুরে রেফার্ড করি। ওই ক্লিনিকে সিজার করতে আসা একাধিক ব্যক্তি অভিযোগ কওে বলেন, লাইফ কেয়ার হসপিটাল এন্ড ডায়াগনগষ্টি সেন্টারটিতে বার বার ভুল চিকিৎসায় মৃত্যুর ঘটনা ঘটলেও নিয়ম নিতীর তোয়াক্কা না করেই কতৃপক্ষ অবৈথভাবে গড়ে ওঠা লাইফ কেয়ার হসপিটাল এন্ড ডায়াগণষ্টিক সেন্টারটি খোলা রেখে যথারিতি ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে।
এ বিষয়ে ক্লিনিকের ডাঃ আইনুল হকের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি। নীলফামারী সিভিল সার্জেন ডাঃ রনজিৎ কুমার বর্মন বলেন, এসব ক্লিনিকের কোন রেজিষ্ট্রেশন নেই তারা অবৈধভাবে ক্লিনিক পরিচালনা করছে। ভুক্তভোগী অভিযোগ করলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।