Home » » ফুলবাড়ীতে খারিজ বাতিল চেয়ে বাদিকে হয়রানী

ফুলবাড়ীতে খারিজ বাতিল চেয়ে বাদিকে হয়রানী

চিলাহাটি ওয়েব ডটকম : 24 March, 2020 | 11:27:00 PM

আফজাল হোসেন ফুলবাড়ী প্রতিনিধি,চিলাহাটি ওয়েব : ফুলবাড়ী সহকারী কমিশনার (ভূমি) কর্মকর্তার নিকট ২টি খারিজ বাতিলের আবেদন করলে ফুলবাড়ী ভূমি অফিস শুনানি না করে বাদি মোঃ লতিফুন ইসলাম কে হয়রানী করছে। ফুলবাড়ী উপজেলার শিবনগর ইউপির পূর্ব রামচন্দ্র পুর গ্রামের মোঃ আব্দুস সামাদ এর পুত্র মোঃ লতিফুন ইসলাম অভিযোগে জানা যায়, ফুলবাড়ী মৌজা-সিংড়া, জেএল নং-১৩৫, খনিয়ান সিএস নং-১২৪, এস এ-৪২, খারিজি খ-৮৯, দাগনং এসএ-৬২, রকম-ডাঙ্গা, ২২ শতাংশের মধ্যে ১১ শতাংশ জমি এসএ রেকর্ড অন্নদা ময়ী দেব্যা নামে এসএ রেকর্ড ভূক্ত জোত। তাহার মৃত্যুর পর ২ পুত্র ওয়ারিশ সূত্র প্রাপ্ত হয়ে স্বত্ববান ও ভোগদখলকালিন অবস্থায় মৃত্যু বরন করেন। তার ওয়ারিশ শ্রী অধির চক্রবর্তী, নির্মল চক্রবর্তী উভয়ের পিতা কুমদ চক্রবর্তী ও শ্রী প্রসান্ত কুমার চক্রবর্তী (তাপষ) পিতা মৃত খগেন্দ্র নাথ চক্রবর্তী তাহাদের নিকট থেকে আমি বাদী গত ২২/০২/২০১৮ ইং তারিখে ফুলবাড়ী সাব রেজিষ্ট্রি নেই। যাহার কবলা দলিল নং-১২৪২। ২০/০৯/২০১৮ ইং তারিখে খাজনা পরিশোধের জন্য শিবনগর তফশিল অফিসে গিয়ে জানতে পারি মৌজা-সিংড়া, জেএল নং-১৩৫, খনিয়ান সিএস নং-৪২, দাগনং-৬২, ২২ শতাংশের মধ্যে ১১ শতাংশ উক্ত তৌশিলদারকে জিজ্ঞাসা করলে ২ নং রেজিষ্ট্রার বাহির করে দেখেন মধ্য সুলতানপুর গ্রামের মৃত রমেশ চন্দ্র রায় এর পুত্র শ্রী মাধব চন্দ্র রায় ৬২ নং দাগের ২২ শতাংশের মধ্যে ১১ শতক সম্পত্তি খারিজ করে নেয়। গত ০৩/১০/২০১৮ ইং তারিখে মিস কেস নং-ওঢ-১/২৫/২০০১-০২ আংশিক খারিজ বাতিলের জন্য আবেদন করে। ফুলবাড়ী সহকারী (ভূমি) অফিসের প্রাপ্তি নং-১৩৩৪। একই তারিখে মিস কেস নং-ওঢ-১/২৬/২০০১-০২ আংশিক খারিজ বাতিলের জন্য আবেদন করে। ফুলবাড়ী সহকারী (ভূমি) অফিসের প্রাপ্তি নং-১৩৩৫। কিন্তু সহকারী কমিশনার (ভূমি) অফিস শুনানি না করে গত ২ বছর ধরে জমির মালিক লতিফুল ইসলামকে হয়রানী করছে। এ দিকে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আবু ছালেহ মোঃ মাহফুজুল আলম এর সাথে যোগাযোগ করা হলে গত ২৪/১২/২০১৯ ইং তারিখে বিকেল ৪টা ২৫ মিনিটি এসএমএস এর মাধ্যমে জানান জানুয়ারী মাসের ১৪ তারিখ আপনার মিসকেসটির শুনানি রয়েছে। উপজেলা ভূমি অফিসে খোজ নিন। গত ১৪/১২/২০১৯ ইং তারিখে ফুলবাড়ী সহকারী কমিশনার (ভূমি) অফিসে খোজ নিয়ে জানতে পারি যে, ফুলবাড়ী সহকারী কমিশনার (ভূমি) অফিসের সাটিফিকেট পেশকর মোঃ মোশারাফ হোসেন বাদিকে জানান, নোটিশটি ভুল করে অন্য ব্যক্তির নামে দেওয়া হয়েছে। ইউনিয়ন ভূমি অফিস থেকে নতুন করে রিপোট পাওয়া গেলে তার পর আবার নোটিশ জারি করা হবে। ২টি অংশিক মিসকেস আর কতদিন গেলে সমাধান পাবে? উক্ত অফিসের সাটিফিকেট পেশকর মোঃ মোশাফার হোসেন সাধান মানুষের সাথে খারাপ আচরন করেন বলে অভিযোগ উঠেছে। উক্ত ব্যক্তি দীর্ঘদিন ধরে একই স্থানে চাকরি করার কারণে প্রভাব বিস্তার ঘটেছে। বিষয়টি সরে জমিনে তদন্ত পূর্বক মিসকেস শুনানির জন্য দ্রুত পদক্ষেপ নিতে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের আসুহস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।