Home » » যুবকেরাই অসহায়দের মাথার ছাতা

যুবকেরাই অসহায়দের মাথার ছাতা

চিলাহাটি ওয়েব ডটকম : 19 March, 2020 | 11:24:00 PM

বদরুদ্দোজা বুলু, পার্বতীপুর প্রতিনিধি,চিলাহাটি ওয়েব : এক সময় সবই ছিল। ছিল চাকরী, টাকা-কড়ি, বাড়ি, স্ত্রী-সন্তান। ভাগ্যের নির্মম পরিহাস। আজ পাশে কেউ নেই। যে স্ত্রী পাশে আছে সেও আবার প্যারালাইসিস রোগী। এমনিতে নিজের পেটের ভাতই রোজগার করতে পারে না, তার উপর স্ত্রীর চিকিৎসা খরচ। এখনও ভাল মানুষ, ভাল যুবক আছে বলেই অনেক অসহায় মানুষ মাথা গোজার মত ঠাঁই খুজে পায়। 

ছবিতে পাঞ্জাবী পড়া কন্যাদায়গ্রস্থ মানুষটির নাম আব্দুল জব্বার মিয়া। বয়স ৭৫। স্ত্রী ২ ছেলে ২ মেয়ে রয়েছে তার। এক সময়ে রেলওয়েতে চাকরী করতেন। অবসর জীবনে যা পেনশন পান তা দিয়েই সংসার ভালই চলছিল। স্ত্রী’র অসুখ হলে ধার-দেনা করে স্ত্রীকে সুস্থ্য করার চেষ্টা করে। এসময়ে তিনি অন্যের কাছে ধারে নেয়ার টাকা সুদ দিতে দিতে এখন আর সংসার চলে না। অসহায়ের মত অন্যের পথপানে চেয়ে থাকে। ২ ছেলে চলে গেছে। ১ মেয়ে বাবার টাকা নিয়ে উধাও হয়ে গেছে। ঘরে এখন একটি অবিবাহিত কন্যা। টাকার অভাবে মেয়ের বিবাহ দিতে পারছে না। 
আজকের যুবকেরা অসহায়দের মাথার ছাতা হয়ে এগিয়ে চলছে। এর মধ্যে হেল্পিং সেন্টারের নাম উঠে আসে। এমন সংবাদ যখন পার্বতীপুর হেল্পিং সেন্টারের কর্মকর্তাদের কর্ণপাত হয় তখন প্রায় ৩০ জন যুবক একত্রিত হয়ে শহরের ১ নং ওয়ার্ডের গুলপাড়া মহল্লায় খুব দ্রুত ছোট ছোট ৩টি রুম তৈরী করেন। পরে হেল্পিং সেন্টার কমিটির আলোচনা সাপেক্ষে গত ১৭ মার্চ একটি ৩ রুম বিশিষ্ট টিন সেডের তৈরীকৃত বাড়ীটি আব্দুল জব্বার মিয়ার কাছে বুঝে দেন সংগঠনটির সহ-সভাপতি রানা আহমেদ। এসময় তার সংগঠনের সাধারণ সম্পাদ আরিফুজ্জামান শেখ, সদস্য ইমরান, এফরান খান লাল, রাজু আহমেদ, রানা মাস্টার, রেজওয়ান,আমিনুল ও আরাফাত। সহ-সভাপতি রানা আহমেদ মানব বার্তাকে জানায় হেল্পিং সেন্টার কমিটির সদস্যরা ছাড়াও আমার সহপাঠিদের আর্থিক সহযোগিতায় খুব দ্রুত গতিতে কাজ সম্পন্ন করি। 
আর এতে ব্যয় হয়েছে সর্বমোট ৩০ হাজার ৭ শত ৩০ টাকা। রানা আহমেদ বলেন, অসহায় মানুষের পাশে হেল্পিং সেন্টা ছিল-আছে এবং আগামীতেও থাকবে। এজন্য সকলের সার্বিক সহযোগিতা ও দোয়া করছি।