Home » » ফুলবাড়ী ভুমি অফিসে অদক্ষ সার্ভেয়ার দিয়ে চলছে ভুমি অফিস

ফুলবাড়ী ভুমি অফিসে অদক্ষ সার্ভেয়ার দিয়ে চলছে ভুমি অফিস

চিলাহাটি ওয়েব ডটকম : 24 July, 2019 | 11:07:00 PM

আফজাল হোসেন ফুলবাড়ী প্রতিনিধি,চিলাহাটি ওয়েব : দিনাজপুরের ফুলবাড়ী ভুমি অফিসে অদক্ষ সার্ভেয়ার দিয়ে চলছে ভুমি অফিস। ভুমির বৈধ্য কাগজপত্র দিলেও ভুমি অফিসের সার্ভেয়ার সাধারন জনগনের সঠিক ভাবে কাজ করছেন না। ফুলবাড়ী ভুমি অফিসের তৎকালীন সার্ভেয়ার মো. খাইরুল ইসলাম এর বদলী হলে তার স্থলে শ্রী দেবাশীষ কর্মকার বোচাগঞ্জ থেকে তিনি ফুলবাড়ী ভুমি অফিসে সার্ভেয়ার পদে যোগদান করেন। ভুমি অফিসে বিভিন্ন ইউনিয়ন অফিস থেকে জমির খারিজ খাজনার কাগজ পত্র তার কাছে এলে তিনি তার খিয়াল খুশি মতো ফাইল বের করেন এবং অর্থের বিনিময়ে খারিজ করে দেন। ফুলবাড়ী ভুমি অফিস এর পিওন মো. এরশাদুল এর কক্ষে খারিজের ফাইল পড়ে থাকতে দেখা যায়। সার্ভেয়ার অফিস কক্ষে ঐসব খারিজের ফাইল থাকার কথা থাকলেও ফাইল থাকছে অফিস পিওনের ঘরে। স্থানীয় জনগন প্রতিদিন খারিজের জন্য তার ঘরে ধর্না দিচ্ছে কিন্তু তাদের কাজের কাজ কিছুই হচ্ছেনা। পিওনের ঘরে জমি খারিজের কাগজপত্র বিভিন্ন ভাবে পড়ে থাকতে দেখা যায়। লোকজন অফিসে বেশি দেখাগেলে তিনি তার কক্ষে তালা লাগিয়ে চলে যান। অফিসে বলা হয় তিনি সরকারি কাজে বাহিরে চলেগেছেন। বিশেষ ব্যক্তিদের খারিজ করে দেয়া হয়। অভিযোগ উঠেছে ভুমি মালিকদেরকে দীর্ঘদিন ধরে ঘুরানো হয়। তিনি নিজেই কোন কাগজ সঠিক আর কোন কাগজ সঠিক নয় সে নিজেও বুঝেনা। শুধু মানুষকে অনেক ভাবে বিভ্রান্তি করছেন এক বছর ধরে। অফিসে খারিজ খাজনা করতে এসে সাধারন মানুষের পায়ের জুতো খয় হয়ে যাচ্ছে। জমিজমার খারিজ যত বৃদ্ধি পাবে তত সরকারের রাজস্ব বৃদ্ধি পাবে। ফুলবাড়ী ভুমি অফিসের সার্ভেয়ার শ্রী দেবাশীষ কর্মকার কে দিয়ে ফুলবাড়ী ভুমি অফিস চলা সম্ভব নয়। এব্যপারে বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ এলাকার মো. হাবিবুর রহমান জানান, আমি যৎ সামান্য জমি খারিজ করতে দিয়েছি প্রায় ৪ মাস হলেও আমার জমির খারিজ হয় না। আমার মতো আরো কত লোক যে খারিজের জন্য হয়রানী হচ্ছে, তা অফিসে গেলে দেখতে পাবেন। ফুলবাড়ী উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন ও পৌরসভার সাধারন জনগন খারিজ করতে এসে পদে পদে হয়রানী হচ্ছে। এব্যপারে স্থানীয় বিভিন্ন মহল, জমির মালিক ও ভুক্তোভুগিরা ঐ অদক্ষ সার্ভেয়ার শ্রী দেবাশীষ কর্মকারের বদলী দাবী জানিয়েছেন।