Home » » ডোমারে নানা অপকর্মের হোতা রাজু গ্রেপ্তার

ডোমারে নানা অপকর্মের হোতা রাজু গ্রেপ্তার

চিলাহাটি ওয়েব ডটকম : 11 May, 2019 | 5:35:00 PM

আব্দুল্লাহ আল মামুন, ভ্রাম্যমান প্রতিনিধি,চিলাহাটি ওয়েব : জেলার ডোমার উপজেলার জোড়াবাড়ী ইউনিয়নের নানা অপকর্মের হোতা আব্দুর রাজ্জাক রাজুকে অবশেষে অন্যের জমির ধান চুড়ি করার অপরাধে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শুক্রবার সকালে রাজু তার দলবল নিয়ে তার বাড়ীর পার্শ্বে জনৈক আশরাফ আলীর জমিতে রোপনকৃত আধাপাকা ইরি ধান চুড়ি করার অপরাধে তাকে আটক করে ডোমার থানা পুলিশ।
শুক্রবার সকালে উপজেলার জোড়াবাড়ী ইউনিয়নের ষ্টেশনপাড়া গ্রামে ঘটনাটি ঘটে।
থানায় মামলা সূত্রে জানাযায়,জোড়াবাড়ী ইউনিয়নের হলহলিয়া ভাসানীপাড়া গ্রামের মৃত শাহ জালালের ছেলে আশরাফ আলীর(৫৫) জোড়াবাড়ী ষ্টেশনপাড়া সংলগ্ন এলাকায় ক্ষেতের জমি রয়েছে। সেই জমিতে বর্তমানে ইরি ধান আধাপাকা অবস্থায় রয়েছে।
শুক্রবার সকাল সাড়ে এগারটার সময় ষ্টেশন পাড়ার মৃত নজির হোসেনের ছেলে আব্দুর রাজ্জাক রাজু(৩৬) তার স্ত্রী লিনা আক্তার(৩০) ও অজ্ঞাত আরো চার-পাঁচজনের একটি সংঘবদ্ধ দল হাতে লাঠি,ধারালো ছোড়া,কাচি দা নিয়ে আশরাফ আলীর ইরিধান রোপনকৃত জমিতে অবৈধভাবে প্রবেশ করে জমিতে থাকা আধাপাকা ইরিধান কাটতে থাকে। খবর পেয়ে আশরাফ আলী জমিতে গিয়ে তাদের ধান কাটতে বাধা প্রদান করলে রাজু তারস্ত্রী লিনাসহ অজ্ঞাতনামা লোকজন জমির মালিক আশরাফ আলীকে মারধর করে।
এ সময় আশরাফ আলীর চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে রাজু ক্ষিপ্ত হয়ে আশরাফ আলীকে হত্যার উদ্দেশ্যে গলাচিপে শ্বাসরোধ করে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করলে সে প্রানে রক্ষাপায়। এদিকে রাজু জমির মালিক আশরাফ আলীসহ স্থানীয়দের লাঠি,ছোড়া দিয়ে ভয়ভীতি দেখালে আশরাফ আলী ও স্থানীয়রা জীবনের ভয়ে জমি থেকে পালিয়ে আসে। এই সুযোগে তারা আশরাফ আলীর জমির ধান চুরি করে নিয়ে যায়।
এ ব্যাপারে আশরাফ আলী ডোমার থানায় শনিবার সকালে মামলা দায়ের করেন। এ ঘটনায় পুলিশ মামলার এক নম্বর আসামী রাজুকে গ্রেপ্তার করে। আব্দুর রাজ্জাক রাজুর বিরুদ্ধে এলাকাবাসীকে হয়রানি,সরকারী জমিতে পুল নির্মানে বাধা দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। রাজু পার্শ্ববর্তী এক প্রভাবশালী আওয়ামী লীগ নেতার গাড়ীর ড্রাইভার হওয়ার কারনে এলাকাবাসী ভয়ে তাকে কোন কিছু বলতে না। ঐ আওয়ামী লীগ নেতার নাম ভাঙ্গিয়ে এলাকায় তিনি লোকজনের সাথে সামান্য বিষয় নিয়ে গন্ডগোলে জরিয়ে পরতো। এমনকি ডোমার থানার সুনামধন্য দুইজন এসআই এর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করে তাদের সম্মানহানী করে হয়রানী করেছে।যদিও এই মামলাটি পরে মিথ্যা প্রমানিত হয়েছে। এদিকে রাজুর গ্রেফতারের খবরে এলাকায় স্বস্তি ফিরে এসেছে।
স্থানীয়রা জানান,রাজু সব সময় মানুষের পিছনে লেগে থাকতো। সামান্য বিষয় নিয়ে সে এলাকাবাসীকে হয়রানী করতো। ভয়ে স্থানীয়রা তাকে কিছু বলতো না। এমনকি সরকারী পুল নির্মানে বাধা দিয়ে দেড় বছর ধরে মানুষের চলাচলের রাস্তাও সে বন্ধ করে দিয়েছে।