Home » » আটোয়ারীতে নির্বাচনের পর দিন দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে সংঘর্ষে পুলিশের টিয়ারসেল নিক্ষেপ ॥ পুলিশসহ আহত-১১

আটোয়ারীতে নির্বাচনের পর দিন দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে সংঘর্ষে পুলিশের টিয়ারসেল নিক্ষেপ ॥ পুলিশসহ আহত-১১

চিলাহাটি ওয়েব ডটকম : 11 March, 2019 | 11:21:00 PM

এ রায়হান চৌধূরী রকি, আটোয়ারী প্রতিনিধি,চিলাহাটি ওয়েব : পঞ্চগড়ের আটোয়ারীতে নির্বাচন পরবর্তী চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সহিংসতায় পুলিশ সহ ১১ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এদিকে নির্বাচন পরবর্তী গতকাল সোমবার দুপুরে উপজেলার ফকিরগঞ্জ বাজারে উভয় গ্রুপের সমর্থকদের মধ্যে আকস্মিকভাবে সংঘর্ষ বাঁধে। উভয় পক্ষের মধ্যে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ সহ লাঠি-শোটা নিয়ে মারমুখি ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া চলতে থাকলে তাৎক্ষনিকভাবে আটোয়ারী থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনের চেষ্টা চালায়। এতে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে টিয়ারসেল নিক্ষেপ করে। সংঘর্ষটি বিরাট আকার ধারণ করলে ইতিমধ্যে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট শারমিন সুলতানার নেতৃত্বে পুলিশ, বিজিবি, র‌্যাব ও স্ট্রাইকিং ফোর্স ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। অনাকাংখিত পরিস্থিতি পূনরাবৃত্তি না ঘটার জন্য বাজারের সকল দোকান-পাট বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়। উল্লেখ, পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচন ২০১৯-এর প্রথম ধাপের নির্বাচনে পঞ্চগড়ের আটোয়ারীতে উৎসবমুখর পরিবেশে শান্তিপূর্ন কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে ১০ মার্চ সুষ্ঠভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে চেয়ারম্যান পদে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক দলীয় প্রতিক নৌকা নিয়ে মোঃ তৌহিদুল ইসলাম ২য় বারের মতো চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। তার একমাত্র প্রতিদ্বন্দি উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. মোঃ আনিছুর রহমান প্রায় সাড়ে ৯ হাজার ৫৫০ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হন। আহতরা হলেন, সুখাতি গ্রামের হাকিম উদ্দীনের পুত্র মোঃ বাবুল (৪০), তাহেরুলের পুত্র রাকিব ইসলাম (১৫), মোঃ সেলিম (২৫), শামসুল হকের পুত্র হোসেন আলী (৩২), শহিদুলের পুত্র গোলাপ (১৫), রফিজুলের পুত্র মখিম উদ্দীন (২৮), ছোটদাপ গ্রামের সফিকুল ইসলাম বাতাসুর পুত্র আতিকুল ইসলাম (১৪), সামসুদ্দিনের স্ত্রী সুলতানা বেগম (২৫) এবং আটায়ারী থানার এ.এস.আই আতিক হাসান (৩৫), কনস্টেবল সুজা উদ্দীন (২২) ও রাজিউর রহমান (২৪) আহত হয় বলে জানাগেছে। এদের মধ্যে ৫ জন আটোয়ারী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডাঃ হুমায়ুন কবীর জানান, আহত রোগীরা বর্তমানে আশংকামুক্ত। এরিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ফকিরগঞ্জ বাজারের সমস্ত দোকান-পাট বন্ধ ছিল।