Home » » নীলফামারী-৪ আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী মুক্তিযোদ্ধা আমিনুল ইসলাম সরকার

নীলফামারী-৪ আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী মুক্তিযোদ্ধা আমিনুল ইসলাম সরকার

চিলাহাটি ওয়েব ডটকম : 07 November, 2018 | 1:13:00 AM

 



































 মাহফিজুল ইসলাম রিপন, বিশেষ প্রতিনিধি : 

আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নীলফামারী-৪(সৈয়দপুর-কিশোরগঞ্জ) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চাইবেন গণ-মানুষের নেতা বীর মুক্তি যোদ্ধা আমিনুল ইসলাম সরকার । ইতিমধ্যে তিনি দলটির কেন্দ্রীয় মহলের যোগাযোগ শুরু করেছেন বলে জানা গেছে। ক্লিন ইমেজের অধিকারী এ নেতার দল থেকে নমিনেশন দিতে জোর আলোচনা চলছে( সৈয়দপুর- কিশোরগঞ্জ)-৪ আসনের সর্বস্তরের জনগনের মাঝে। এলাকার ভোটারদের প্রত্যাশা এমন একজনকে জনপ্রতিনিধি হিসেবে পেলে অবহেলিত অঞ্চলটির জনগণ আশার আলো পাবে।ইতিমধ্যে তিনি দুই উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম পথসভায় জননেএী শেখ হাসিনা সরকার উন্নয়নের চিএ তুলে ধরে লিফলেট বিতরন ও নৌকার পক্ষে ভোট প্রার্থনা করেন। তিনি সৈয়দপুর-কিশোরঞ্জে কর্মরত স্থানীয় সংবাদিকদের সাথে সৌজন্য সাক্ষাত করেছেন।মুক্তিযোদ্ধা আমিনুল ইসলাম মনে করেন, রাজনীতি হচ্ছে এমন এক ’নীতি’ যা কোন দেশের সার্বভৌমত্ব,সংবিধানকে অবিচল রেখে দেশের নাগরিকদের মৌলিক চাহিদা এবং নিরাপওা নিশ্চিত করা। জাতীয় অর্থনীতিকে বেগবান করে আন্তর্জাতিক পরিসরে দেশের জাতীয়তাকে প্রতিষ্ঠিত করা। রাজনীতি হচ্ছে অত্যন্ত সচেতন, মার্জিত,শিক্ষিত এবং দ্বায়িত্বশীল মানুষের কাজ। আর এ কাজটিই দায়িত্বশীলতার সহিত করতে চান তিনি।মুক্তিযোদ্ধা আমিনুল ইসলাম বিষয়ে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, তিনি আওয়ামী লীগ পরিবারের সদস্য হিসেবে দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় গণসংযোগ করে চলেছেন। মুক্তিযুদ্ধের এই অবিকল্প সারথি ১৯৬৯ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে কারাগার থেকে মুক্ত করার আন্দোলনের মধ্যদিয়ে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে যুক্ত হয়েছেন । এরপর জাতির পিতার ডাকে ১৯৭১ এ রনঙ্গনে থেকে মুক্তিযুদ্ধ করেছেন ।এ ছাড়া যুদ্ব পরবর্তী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় শেখ কামালের সঙ্গে সখ্যতা গড়ে উঠে । সরেজমিনে খোজ নিয়ে জানা গেছে ,নীলফামারী -৪ ( সৈয়দপুর-–কিশোরগজ্ঞ )আসনে দলের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে যোগ দিচ্ছেন।এতে করে এলাকার ভোটারদের মাঝে প্রাণ চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। স্থানীয় ভোটারদের চাওয়া বড়দল থেকে একজন প্রতিশ্রতিশীল মানুষ পাওয়া যিনি এই এলাকাটির উন্নয়ন সাধন করবে।তবে, আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আমিনুল ইসলাম সরকারের চাওয়া বাকিটা জীবন জণগনের জন্য কিছু করে যাওয়া। তিনি বলেন, আমি জণগনের জন্য কাজ করতে চাই, জনগনের পাশে থাকতে চাই ।আমার এই( সৈয়দপুর- কিশোরগজ্ঞ )এলাকার মানুষ সবাই ভাই ভাই ।বিভিন্ন এলাকার ভোটারদের সাথে আলাপ করে দেখা গেছে ,এখানে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পেতে যে কয়েকজন দোঁড়ে রয়েছেন তার মধ্যে সবার চেয়ে এগিয়ে আছেন প্রবীন এ মুক্তিযোদ্বা ।সৈয়দপুর উপজেলার বোতলাগাড়ী ইউনিয়নের আওয়ামীলীগ নেতা আঃ রাজ্জাক বলেন,আমরা এমন এক নেতা চাই যিনি গন মানুষের কথা বলবে ।যার কাছে সাধারন মানুষ অনাযাসে পৌঁচ্ছাতে পারবে, তেমনি একজন নেতা আমিনুল ইসলাম সরকার । তার নিকটগরীব ধনী সবাই মানুষ ।সকলকে তিনি একই চোঁখে দেখেন ।তবে বিভিন্ন এলাকার ভোটারদের অভিযোগ এই এলাকা থেকে যিনি জণপ্রতিনিধি নির্বাচিত হন তারা জণগন থেকে দূরে চলে যান। এ কারণে এ অঞ্চলের মানুষের মধ্যে সুষম উন্নয়ন হয়না। আমরা এমন একজন আস্থাশীল নেতা চাই, যার কাছে আমাদের অভিযোগ জানাতে পারবো । কিশোরগজ্ঞ উপজেলার ভোটার মমিনুল ইসলাম বলেন, এ আসনে একজন শক্তিশালি এ নেতার বিকল্প নেই ।যিনি দীঘ দিন ধরেদলের নেতাকর্মীদের মাঠ পর্যায়ে বিভিন্ন ধরনের সহযোগিতার মাধ্যমে দলকে এগিয়ে নিয়েছেন । এমন একজনকে জনপ্রতিনিধি হিসেবে পেলে এলাকার অভুতপূর্ব উন্নয়ন হবে বলে আশা করছি ।বঙ্গবন্ধুর আদঁশের সৈনিক হিসাবে বঙ্গবন্ধুর আর্দশ বাস্তবায়নেই আমিনুুুল ইসলাম সরকারের প্রধান লক্ষ্য । তিনি বিশ্বাস করেন ,সমাজের সুবিধাবঞ্চিত দরিদ্র জনগোষ্টির জীবনমান উন্নয়নের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তোলা সম্ভব । পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষিত ভিশন-২০২১ এবং ২০৪১ এর লক্ষ্য মাত্রা অর্জন এবং বঙ্গবন্ধুর পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়ের স্বপ্ন ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তোলার মাধ্যমেই বিশ্বে অন্যাণ্য নজির স্থাপন সম্ভব বলেও মনে করেন তিনি ।তিনি আরো বলেন,এলাকার প্রতিটি উন্নযন মুলক কাজের সঙ্গে নিজেকে জড়িত রাখার চেষ্টা করেছি । আমার নির্বাচনী এলাকার প্রতিটি জায়গায় আমার পদচারনা রয়েছে । সবচেযে বেশি সম্পর্ক রয়েছে তরুন প্রজম্মের সঙ্গে । তরুনদের এগিয়ে নিতে আগামী নির্বাচনী প্রার্থী হতে চাই । তবে মাননীয় নেত্রী আমাকে যেই দায়িত্ব দিবেন সেই অনুযায়ী কাজ করবো ।