Home » » পঞ্চগড়ে পরিখা খনন ও বাঁশের বেড়া দিয়ে কারিগরী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের চলাচলের রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা

পঞ্চগড়ে পরিখা খনন ও বাঁশের বেড়া দিয়ে কারিগরী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের চলাচলের রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা

চিলাহাটি ওয়েব ডটকম : 26 October, 2018 | 11:33:00 PM

আমির খসরু লাবলু, পঞ্চগড় ব্যুরো,চিলাহাটি ওয়েব : পঞ্চগড় জেলার সদর উপজেলার গড়িনাবাড়ি ইউনিয়নের মিনাল বেসরকারি পলিটেকনিক ইনষ্টিটিউটের রাস্তা দখল করে পরিখা খনন ও বাঁশের বেড়া দিয়ে প্রতিষ্ঠানের গাড়ি, প্রশিক্ষণের গাড়ি, শিক্ষার্থী বহনের গাড়ি, শিক্ষার্থী ও সাধারণ জনগণের চলাচলে বাঁধা সৃষ্টি করা হয়েছে। বিষয়টি জেলা প্রশাসনসহ সরকারি বিভিন্ন দপ্তর ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কাছে লিখিত অভিযোগ করেও কোন সুরাহা হচ্ছে না। ফলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি ও প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা চরম বিপাকে পড়েছেন। বিশেষ করে ড্রাইভিং ট্রেডে ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীরা প্রশিক্ষণের গাড়ি বের করতে না পারায় প্রশিক্ষণ নিতে পারছে না। অভিযোগে জানা যায়, পঞ্চগড়-আটোয়ারী সড়ক থেকে ৪শ’ ফিট ভিতরে কাশিমপুর মৌজার অর্šÍভুক্ত ১৩৩৮ দাগের ওপর মিনাল বেসরকারি পলিটেকনিক ইনষ্টিটিউটটি প্রতিষ্ঠিত। বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক রেজিষ্ট্রেশন প্রাপ্ত এই প্রতিষ্ঠানের ড্রাইভিং ট্রেডসহ চারটি ট্রেডে সট কোর্স ও দীর্ঘ মেয়াদী কোর্সে প্রায় শতাধিক শিক্ষার্থী অধ্যায়নরত। প্রতিষ্ঠানিটি তৈরির পূর্বে শিক্ষার্থীদের চলাচলের রাস্তার কোন প্রতিবন্ধকতা না থাকলেও গত এক মাস যাবত স্থানীয় জনৈক অলিয়ার রহমান ও মোস্তাফিজার রহমান লাবুসহ একটি প্রভাবশালী ও কুচক্রিমহল প্রতিষ্ঠানের প্রবেশের রাস্তা কেটে পরিখা খনন ও বাঁশের বেড়া দিয়ে প্রতিবন্ধকতা সৃস্টি করেছেন। পূর্বে সড়ক থেকে প্রতিষ্ঠান পর্যন্ত ৪শ’ ফিট রাস্তার প্রশস্ত ছিল ১৫ ফিট। বর্তমানে পরিখা খনন ও বাঁশের বেড়া দেওয়ায় সড়ক থেকে প্রতিষ্ঠান পর্যন্ত রাস্তাটি আড়াই থেকে ৪ ফিটে পরিণত হয়েছে। ফলে প্রতিষ্ঠানের গাড়ি, ড্রাইভিং ট্রেডের শিক্ষার্থীদের প্রশিক্ষনের গাড়িসহ কোন যানবাহনই মহাসড়ক থেকে ওই প্রতিষ্ঠানে যেতে পারছে না। এদিকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যাতায়াতের রাস্তায় পরিখা খনন ও বাঁশের বেড়া দিয়ে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির বিষয়টি জেলা প্রশাসনসহ সরকারি বেসরকারি বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করায় উল্টো ওই মহলটি বুধবার (২৪ অক্টোবর) গভীর রাতে পঞ্চগড়-রুহিয়া সড়কের দুধারে লাগানো প্রতিষ্ঠানের ব্যানার ও ফেস্টুন লুট, ভাংচুর ও কেটে ফেলাসহ নষ্ট করে দিয়েছেন। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার (২৫ অক্টোবর) দুপুরে প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে পঞ্চগড় থানায় একটি জিডি করা হয়েছে। পঞ্চগড় থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। মিনাল বেসরকারি পলেটেকনিক ইনস্টিটিউটের ড্রাইভিং কোর্সের শিক্ষার্থী আজাহার আলী, গৌতম চন্দ্র, মোজাহারুল ইসলাম বলেন, ভর্তির পর থেকে পঞ্চগড়-আটোয়ারী সড়ক থেকে প্রতিষ্ঠান পর্যন্ত রাস্তাটি দখল করে রাখা হয়েছে। সরু রাস্তা দিয়ে প্রশিক্ষণের গাড়ি যাতায়াত করতে পারছে না। একারণে এখন পর্যন্ত হাতে কলমে শিক্ষা নিতে পারছি না। মিনাল বেসরকারি পলেটেকনিক ইনস্টিটিউটের চেয়ারম্যান সাজেদুর রহমান সাজু বলেন, স্থানীয় একটি প্রভাবশালী ও কুচক্রিমহল কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান মিনাল বেসরকারি পলেটেকনিক ইনস্টিটিউটকে ধ্বংসের যঢ়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছেন। তারা রাস্তা কেটে পরিখা খনন ও বাঁশের বেড়া দিয়ে প্রতিষ্ঠানের প্রশিক্ষণ গাড়িসহ প্রতিষ্ঠানের অন্যান্য গাড়ি যাতায়াতে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি, প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের ভয়ভীতি, প্রতিষ্ঠানের ব্যানার ও ফেস্টুন ছিড়ে ফেলা, কেটে ফেলা এবং লুট করে নিয়ে যাওয়াসহ নানা অপকর্মে লিপ্ত রয়েছেন। তিনি আরও বলেন, প্রতিষ্ঠানটি প্রতিষ্ঠিত হওয়ার আগে থেকেই সড়ক থেকে প্রতিষ্ঠানে যাওয়ার এই কাঁচা রাস্তাটি ১৫ ফিট প্রশস্ত ছিল। সম্প্রতি সেটেলম্যান্ট জরীপেও এই রাস্তাটি ৭৩০ ফিট দৈর্ঘ্য এবং ১৫ ফিট প্রশস্ত হিসেবে সরকারিভাবে রেকর্ড হয়েছে। অথচ তারা গাঁয়ের জোরে রাস্তাটি গর্ত করে বাঁশের বেড়া দিয়ে আমাদের যাতায়াতে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে। এ ব্যাপারে অলিয়ার রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, রাস্তার পাশের জমিতে আমার চা বাগান আছে। বাগান রক্ষার্থে আমি পরিখা খনন করে বাঁশের বেড়া দিয়েছি। অপরদিকে মোস্তাফিজার রহমান লাবুর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি গর্ত করিনি বেড়াও দেইনি। তবে জমিটা আমার আমি রাস্তা বাদ দিয়ে বাঁশের গোঁজ (খুটি) দিয়েছি। অভিযোগের বিষয়ে কথা বলতে জেলা প্রশাসক সাবিনা ইয়াসমিনের মোবাইলে যোগাযোগ করেও তাঁকে পাওয়া যায়নি। তবে জেলার সদর উপজেলার গরিণাবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলতামাস হুসাইন লেলিন বলেন, আমি অভিযোগ পেয়েছি। যেহেতু মাপজোকের ব্যাপার আমি অভিযোগটি তহসিলদারের কাছে হস্তান্তর করেছি। #