Home » » বদরগঞ্জের যে মাদ্রাসায় কোন শিক্ষার্থী নেই

বদরগঞ্জের যে মাদ্রাসায় কোন শিক্ষার্থী নেই

চিলাহাটি ওয়েব ডটকম : 06 August, 2018 | 11:28:00 PM

আকাশ রহমান, বদরগঞ্জ প্রতিনিধি,চিলাহাটি ওয়েব : মোজাহারুল উলুম স্বতন্ত্র ইফতেদায়ি মাদরাসা। যে মাদরাসায় ১৫ বছর যাবৎ কোন শিক্ষার্থী নেই। এমনকি মাদরাসায় হাতে গোনা দু-একটি চেয়ার টেবিল বেঞ্চ ছাড়া কিছুই নেই। অথচ ৪ জন শিক্ষক নিয়মিত বেতন ভাতা উত্তোলন করে আসছেন। ১৯৮৪ সালে প্রতিষ্ঠিত মাদরাসাটির অবস্থান বদরগঞ্জ পৌরশহর হতে ৪ কি.মি দুরে মধুপুর ইউপির রাজারামপুর(শুকানপুকুর)নামক স্থানে। এ নিয়ে মাদরাসার দাতা (জমি) সদস্য আনছারুল হক উপজেলা নির্বাহি অফিসার, শিক্ষা অফিসার সহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করেছেন। সরেজমিনে গত গতকাল সোমবার (৬আগষ্ট) সকাল ১০টায় উপজেলার মধুপুর ইউপির রাজারামপুর (শুকানপুকুর) মোজহারুল উলুম স্বতন্ত্র ইফতেদায়ি মাদরাসায় গিয়ে দেখা যায়, একটি রুমের দরজা নেই অন্যটিতে তালা ঝুলানো। ভাঙ্গা দরজা দিয়ে রুমের মধ্যে প্রবেশ করলে দেখা যায় শিক্ষার্থীদের জন্য দুই একটি টেবিল ও বেঞ্চ। তাও ধুলো বালিতে ভরা। সেখানকার টেবিল বেঞ্চের ধুলোবালি জানান দিচ্ছে দীর্ঘদিন ধরে প্রতিষ্ঠানের অভ্যান্তরে পা দেয়নি কেউ। সেখানে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করার পরও প্রধান শিক্ষক আঃ কাদেরের দেখা পাওয়া যায়নি। এমনকি মোবাইল ফোনে অনেক চেষ্টা করেও তার মন্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি। এ সময় এলাকাবাসি আঃ ছাত্তার (৫৫) ও ধীরেন রায় (৬৫) জানান,শুরুর দিকে মাদরাসার কার্যক্রম সচল ছিল। তখন কিছু শিক্ষার্থী এ মাদরাসায় নিয়মিত লেখাপড়া করতো। কিন্তু গত ১৫ বছর হতে মাদরাসার কোন কার্যক্রমও নেই শিক্ষার্থীও নেই। শিক্ষকরা শুধু মাস শেষে বেতন ভাতাদি উত্তোলন করেন। পাশর্^বর্তী কালজানি উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেনির শিক্ষার্থী আশরাফুল আলম জানান,মোজাহারুল উলুম স্বতন্ত্র ইফতেদায়ি মাদরাসায় কোন শিক্ষার্থী না থাকায় আমি ৩ বার পঞ্চম শ্রেনির ইফতেদায়ি প্রাথমিক সমাপনি পরীক্ষায় অংশগ্রহন করেছিলাম। শিক্ষার্থী আশরাফুল আলম আরও জানায়,আমার মত হাই স্কুলের অনেক শিক্ষার্থী ২শত টাকার বিনিময়ে ওই মাদরাসায় ইফতেদায়ি প্রাথমিক সমাপনি পরীক্ষায় অংশ নেয়। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার ফজলে এলাহি জানান, মোজাহারুল উলুম স্বতন্ত্র ইফতেদায়ি মাদরাসার অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে। বদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহি অফিসার রাশেদুল হক জানান, এ সংক্রান্ত অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি আমি সিরিয়াসলি দেখছি।