Home » » গাইবান্ধা-ফুলছড়ি সড়কে বাঁশের সাঁকোয় ঝুঁকি নিয়ে চলাচল

গাইবান্ধা-ফুলছড়ি সড়কে বাঁশের সাঁকোয় ঝুঁকি নিয়ে চলাচল

চিলাহাটি ওয়েব ডটকম News Editor : 29 August, 2018 | 11:40:00 PM

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধা প্রতিনিধি,চিলাহাটি ওয়েব : গাইবান্ধা-ফুলছড়ি সড়কের পূর্ব বোয়ালী এলাকায় নির্মিত সেতুটি ২০১৪ সালের বন্যায় দেবে যায়। সেতু দেবে যাওয়ায় স্থানীয় উদ্যোগে বাঁশের সাঁকো নির্মাণ করে কোন মতে যাতায়াতের ব্যবস্থা করা হয়েছে। নড়বড়ে বাঁশের সাঁকোর উপর দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে ফুলছড়ি উপজেলার লক্ষাধিক মানুষ। দীর্ঘদিনেও সেতুটি পুনঃনির্মাণ না করায় জনদুর্ভোগ চরমে পৌঁছেছে। অথচ জেলা শহরের সঙ্গে সহজে ফুলছড়ি উপজেলার মানুষের যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম এই সেতুটি। কিন্তু তা সত্ত্বেও সেতুটি সংস্কারের কোনো উদ্যোগ গ্রহন করছে না সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা গেছে, গাইবান্ধা-ফুলছড়ি সড়কের পূর্ব বোয়ালী এলাকার সেতুটি ২০১৪ সালের বন্যায় মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এতে সেতুর দক্ষিণ অংশ ভেঙ্গে হেলে পড়ে এবং দেবে যায়। তারপরেও ঝুঁকিপূর্ণ সেতুটি দিয়ে লোকজন চলাচল করে। ২০১৬ সালের শেষ দিকে গুরুত্বপূর্ণ এ সেতুটি ভেঙে গিয়ে যানবাহন সহ লোকজন চলাচলের পথ বন্ধ হয়ে যায়। পরবর্তীতে স্থানীয় উদ্যোগে সেতুটির পাশ দিয়ে একটি বাঁশের সাঁকো নির্মাণ করে সাময়িকভাবে চলাচলের ব্যবস্থা করা হয়। বর্তমানে বাঁশের সাঁকোটি নড়বড়ে হওয়ায় জনসাধারণের চলাচলেও চরম বিঘœ সৃষ্টি হচ্ছে।গাইবান্ধা জেলা শহর থেকে এ পথে ফুলছড়ি উপজেলা সদরের দুরত্ব কম হওয়ায় ফুলছড়ি উপজেলা লক্ষাধিক মানুষ প্রতিদিন এ সড়ক দিয়ে যাতায়াত করে। শহর থেকে পণ্য নিয়ে স্থানীয় ব্যবসায়ীদের ঝুঁকিপূর্ণ ওই সেতু পার হতে হয়। ফুলছড়ি উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের মানুষ তাদের কৃষি পণ্য বিক্রি করতে গুরুত্বপূর্ণ এ সড়ক ব্যবহার করে থাকেন। সেতুর ওপর দিয়ে সদর উপজেলার বোয়ালী গ্রামের লোকজন বিভিন্ন কাজে ফুলছড়ি উপজেলা সদরে যাতায়াত করে। স্থানীয় জনসাধারণ ঝুঁকিপূর্ণ ওই বাঁশের সাঁকো দিয়ে সতর্কতার সঙ্গে চলাচল করতে পারলেও ট্রাক, সিএনজি, নছিমন, করিম এবং ভ্যানসহ অন্যান্য ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। আর এতে এ সড়কে চলাচল করা বেশ কয়েকটি এলাকার জনসাধারণকে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। সরেজমিনে এই সড়কে দেখা যায়, ঝুঁকি নিয়ে ভ্যান, রিক্সা ও মোটর সাইকেল পার হচ্ছে। নড়বড়ে ওই বাঁশের সাঁকোর ওপর দিয়ে ভ্যান-রিক্সা, মোটর সাইকেল নিয়ে লোকজন পার হওয়ার সময় প্রায়ই যানবাহন উল্টে দুঘর্টনা ঘটছে। এ সড়কে চলাচলকারী ভ্যানচালক বাদশা মিয়া বলেন, মালামালসহ পরিবহন নিয়ে বাঁশের সাঁকো দিয়ে পারাপার হতে খুব কষ্ট হয়। মনে হয় এই বুঝি ভেঙে গেল। খুব ভয় লাগে। স্থানীয় সমাজসেবক শামসুজ্জোহা বাবলু বলেন, রাতের বেলা অন্ধকারে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এ সড়কের বাঁশের সাঁকোটি পার হতে হয়। দীর্ঘদিনে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সেতুটি নির্মাণের কোন উদ্যোগেই নেয়নি। তিনি আক্ষেপ করে বলেন, একটা ব্রীজ নির্মাণ করতে আর কত দিন লাগবে ? বোয়ালী গ্রামের বাসিন্দা সাবেক ইউপি সদস্য খলিলুর রহমান বলেন, এই সড়ক দিয়ে ফুলছড়ি উপজেলার অনেক মানুষ জেলা শহরে যাতায়াত করে। অনেক সময় গাইবান্ধা-বালাসী-কালিরবাজার সড়কে কোনো প্রতিবন্ধকতা দেখা দিলে এই সড়কটি বিকল্প সড়ক হিসেবে ব্যবহার করা হয়। কিন্তু কর্তৃপক্ষ সেতুটি মেরামতের কোনো উদ্যোগই নিচ্ছে না। বোয়ালী উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শরিফুল ইসলাম বলেন, বিদ্যালয়ের অনেক ছাত্রছাত্রী ওই বাঁশের সাঁকোর উপর দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করে। অনেকে পড়ে গিয়ে বই খাতা পানিতে ফেলে নষ্ট করেছে। গুরুত্বপূর্ণ এ সেতুটি দ্রুত নির্মাণের জন্য তিনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে এলজিইডি’র ফুলছড়ি উপজেলার উপ-সহকারী প্রকৌশলী এমদাদুল হক মোল্লা বলেন, ফুলছড়ি উপজেলা প্রশাসনে কর্মরত অনেক কর্মকর্তা-কর্মচারী এ সড়ক দিয়ে যাতায়াত করেন। সেতুটি ভেঙে যাওয়ায় লোকজনের চলাচলে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। তিনি বলেন, সেতুটি গাইবান্ধা সদর উপজেলার মধ্যে হওয়ায় ফুলছড়ি উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সেতুটি পুনঃনির্মাণের জন্য সংশ্লিষ্টদের কাছে একাধিকবার অনুরোধ করা হয়েছে।
শেয়ার করুন :