Home » » শুল্ক জটিলতা নিরসনের দাবীতে হিলিস্থলবন্দরে আমদানী কার্যক্রম বন্ধ

শুল্ক জটিলতা নিরসনের দাবীতে হিলিস্থলবন্দরে আমদানী কার্যক্রম বন্ধ

চিলাহাটি ওয়েব ডটকম : 02 July, 2018 | 11:10:00 PM

স্বরূপ বকসী বাচ্চু, দিনাজপুর ব্যুরো,চিলাহাটি ওয়েব : আমদানী করা চাল দ্রুত খালাস করে শুল্ক জটিলতা নিরসনের দাবীতে সোমবার থেকে ভারতীয় ট্রাক চালক ও সহকারীরা পণ্য আমদানী কার্যক্রম বন্ধ ঘোষনা করেছেন। এর ফলে হিলি স্থলবন্দরে আমদানী-রপ্তানী কার্যক্রম বন্ধ হয়েছে। ৭ জুন জাতীয় বাজেটে ভারত থেকে আমদানি করা সকল ধরণের চালের উপর ২ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ২৮ শতাংশ শুল্ক আরোপ করে সরকার। ফলে বাজেট ঘোষনার দিন থেকে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের নির্দেশে আমদানি করা চালের উপর ২৮ শতাংশ শুল্ক কার্যকর করে স্থানীয় কাস্টমস কর্তৃপক্ষ। দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দরের আমদানি-রপ্তানিকারক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাক মাষ্টার জানান, বাজেটের আগে হিলি বন্দর দিয়ে দেশে চাল আমদানি করেন ব্যবসায়িরা। বাজেটের দিন দুপুরে এবং পরেরদিন সেই চাল খালাস করতে গেলে স্থানীয় কাস্টমস কর্তৃপক্ষ ২ শতাংশ শুল্কে চাল খালাস করবে না বলে ব্যবসায়িদের জানান। বিষয়টি নিয়ে একাধিকবার কাস্টমস কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করা হলেও চাল খালাসে তারা অনুমতি দেননি। একারণে ব্যবসায়িরা ২৮ শতাংশ শুল্ক না দিয়ে চাল খালাস না করায় বন্দরের বেসরকারী অপারেটর পানামা হিলি পোর্টে তিন শতাধিক চালের ভারতীয় ট্রাক আটকে থাকে। ফলে এসব ট্রাকের চালক ও হেলপাররা ১ মাস ধরে আটকে থাকায় তারা দেশে ফিরতে না পেরে সোমবার থেকে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম বন্ধ করে দেন। এব্যাপারে ভারতের ব্যবসায়ি, ট্রাক মালিক ও ট্রাক চালকদের সাথে আলোচনা চলছে। হিলি স্থলবন্দরের কাস্টমসের সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম জানান, বাজেটে যদি কোনো পণ্যের উপর শুল্ক আরোপ করা হয়, সেইদিন থেকে তা কার্যকর করা হয়ে থাকে। এ ক্ষেত্রে পূর্বের শুল্ক দিয়ে পণ্য খালাসে কোনো সুযোগ নেই। বর্তমান ২৮ শতাংশ শুল্ক দিয়েই ব্যবসায়িদের চাল খালাস করে নিতে হবে। তিনি আরও জানান, ভারতীয় ট্রাক চালকরা আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম বন্ধ করতে পারেন না। বন্দরে আটকে থাকা ভারতীয় ট্রাকের চালক নাকি মুরমু ও রুবেল মন্ডল জানান, শুল্ক বেশি হবে, না কম হবে সেটা ব্যবসায়ি এবং কাস্টমসের বিষয়। আমাদের কি অপরাধ? আমরা ১ মাস ধরে পানামা পোর্টে চালবোঝাই ট্রাক নিয়ে পড়ে আছি। আমাদের কাছে যে টাকা-পয়সা ছিল তা শেষ হয়ে গেছে। ট্রাক থেকে দ্রুত চাল খালাস করে নিয়ে আমাদের ভারতে যেতে দেয়া হোক। আমরা খাওয়ার সমস্যাসহ অসুস্থ্য হয়ে পড়ছি।