Home » » ডিমলায় বিষ প্রয়োগে প্রকল্পের মাছ নিধন

ডিমলায় বিষ প্রয়োগে প্রকল্পের মাছ নিধন

চিলাহাটি ওয়েব ডটকম : 13 July, 2018 | 8:53:00 PM

মাজহারুল ইসলাম লিটন,ডিমলা প্রতিনিধি,চিলাহাটি ওয়েব : নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার নাইতারা ইউনিয়নের কৈপাড়া গ্রামে একটি মৎস প্রকল্পের প্রায় পাঁছ লক্ষাধিক টাকা মুল্যের মাছ বিষ প্রয়োগে নিধনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। জানাযায়, নাউতারা ইউনিয়নের নাউতারা (কৈপাড়া) গ্রামের মৃত আছিমুদ্দিনের পুত্র হবিবর রহমানের নিকট একই এলাকার আলহাজ্ব জসিম উদ্দিনের পুত্র আব্দুর রাজ্জাকসহ পাঁচজন দুই একর চল্লিশ শতক জমি বাৎসরিক ৫২ হাজার টাকা প্রদানের চুক্তিতে মৎস প্রকল্পের জন্য ২০১৬ইং সালে ১০ বৎরের চুক্তি গ্রহন করে। গত তিন বৎসর যাতব মৎস চাষ করে আসছেন। এমতাবস্থায় জমির মালিক হবিবর রহমান দুই বৎসর পরে জমির চুক্তিনামা বাতিল না করে (১২ জুলাই) ২০১৮ তারিখ রাতের অন্ধকারে উক্ত মাছের প্রকল্পে বিষ প্রয়োগ করে প্রকল্পের মাছ নিধন করে। প্রকল্পের জমিতে থাকা একটি দোচালা টিনের ঘর প্রকল্পে পানি সেচের শ্যালো মেশিন অন্যত্র সড়িয়ে নিয়ে পুরো জমিতে হাল চাষ করেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে হবিবরের বড়ভাই লুৎফর রহমান(৭০) ও এলাকার আব্দুল জলিল(৩৫), সাইদুল ইসলাম(৪৩), আইজুল ইসলাম(৪৮), শরিফ মিয়া(৪২) বলেন, আব্দুর রাজ্জাক প্রতিবেশি হবিবর রহমানের জমি ১০ বৎসরের জন্য চুক্তি নিয়ে গত তিন বৎসর যাবত মৎস চাষ করে আসছেন। বেশকিছুদিন হতে রাজ্জাকের সাথে হবিবরের উক্ত মৎস প্রকল্প নিয়ে দ্বন্দ চলে আসছে। বৃহঃবার রাতে হবিবর রহমান উক্ত মৎস প্রকল্পে বিষ প্রয়োগ করে ট্রাক্টর দিয়ে হাল চাষ করলে প্রায় পাঁচ লক্ষাধিক টাকার মাছ মরে পানিতে ভেসে উঠে। নাউতারা ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের সদস্য শাহের আলী (শাইল্লা) জানান,প্রকল্পের মাছ নিধন করে হবিবর রহমান চরম অপরাধ করেছে, এ জন্য তার শাস্তি হওয়া উচিৎ। এ বিষয়ে আব্দুর রাজ্জাক অভিযোগ করে বলেন, বিষ প্রয়োগ করে আমার মৎস প্রকল্পের প্রায় পাঁচ লক্ষাধিক টাকার মাছ নিধন করায় আমার সীমাহিন ক্ষতি হয়েছে। এ ব্যাপারে প্রতিপক্ষ হবিবর রহমানের নামে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছি। তবে অভিযুক্ত হবিবর রহমান হাল চাষের বিষয়টি স্বীকার করলেও বিষ প্রয়োগ করে মৎস প্রকল্পের মাছ নিধনের বিষয়টি তিনি অস্বীকার করেন। ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম লেলিন বলেন,হবিবর ও রাজ্জাকের মধ্যে মৎস প্রকল্প নিয়ে দ্বন্দ চলে আসছে, এ বিষয়ে উভয় পক্ষ আমাকে মৌখিকভাবে অভিযোগ করেছে। বিষয়টি স্থানীয় ভাবে আপোষ মিমাংসার চেষ্টা চলছে।