Home » » বদরগঞ্জে ১০দিনেও বাড়ী ফিরেনি আরশি !

বদরগঞ্জে ১০দিনেও বাড়ী ফিরেনি আরশি !

চিলাহাটি ওয়েব ডটকম News Editor : 27 June, 2018 | 12:55:00 AM

আকাশ রহমান, বদরগঞ্জ প্রতিনিধি,চিলাহাটি ওয়েব : রংপুরের বদরগঞ্জে নিখোঁজ হওয়ার ১০দিন পেরিয়ে গেলেও বাড়ী ফিরে আসেনি আরশি খাতুন নামে এক যুবতী। পরিবারের সদস্যদের অভিযোগ, তাকে কৌশলে অপহরণ অজ্ঞাত স্থানে লুকিয়ে রাখা হয়েছে। এ কারণে তাকে উদ্ধার করা সম্ভব হচ্ছেনা। অন্যদিকে গ্রামবাসীরা বলছে, প্রেমের টানে, সে গ্রাম ছেড়ে ঢাকা শহরে পালিয়ে গিয়ে স্বামীর সঙ্গে সংসার করছে। অথচ, সব কিছু জানার পরেও আরশির বাবা নিরপরাধ দুলাল মিয়ার বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। গতকাল মঙ্গলবার সরেজমিনে একাধিক গ্রামবাসীর সাথে কথা বলে জানা যায়, উপজেলার মধুপুর ইউনিয়নের মধুপুর মন্ডলপাড়া গ্রামের ফয়জার রহমানের মেয়ে আরশি খাতুনের (১৮) সাথে পার্শ্ববর্তী মুন্সিপাড়া গ্রামের ফয়জার রহমানের ছেলে ফরহাদ আলীর (২৫) প্রেমের সম্পর্ক ছিল। এরই সুত্র ধরে গত শনিবার (ঈদের দিন, ১৬জুন) দুপুরে আরশি খাতুন প্রেমিকের সাথে পালিয়ে যাওয়ার জন্য বাড়ী থেকে বের হয়ে রাস্তার পার্শ্বে দাঁড়িয়ে যানবাহনের জন্য অপেক্ষা করছিল। এ সময় ওই পথ ধরে শহরের দিকে যাচ্ছিলেন একই গ্রামের মৃত আলিমুদ্দনের ছেলে মুদি ব্যবসায়ী দুলাল মিয়া (৪০)। তাকে শহরের দিকে যেতে দেখে যুবতী আরশি তার মটর বাইকে ওঠার জন্য কাকুতি মিনতি করলে দুলাল মিয়া তাকে বাইকে উঠিয়ে নিয়ে শহরের দিকে রওনা দেন। এরপর ওইদিন সন্ধ্যায় দুলাল মিয়া একাকী বাড়ী ফিরে এলেও আরশি খাতুন বাড়ী ফিরে আসেনি। যার ফলে তার পিতা মেয়েকে ফিরে পাওয়ার জন্য দুলাল মিয়ার বিরুদ্ধে বদরগঞ্জ থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। এবিষয়ে অভিযেগকারী ফয়জার রহমান বলেন, আমি শুনেছি দুলাল মিয়া আমার মেয়েকে নিয়ে গিয়ে পার্শ্ববর্তী মুন্সিপাড়া গ্রামের ফরহাদ আলীর হাতে তুলে দিয়েছেন। আমি আমার মেয়েকে ফিরিয়ে পাওয়ার জন্য দুলালের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করেছি। তবে অভিযুক্ত দুলাল মিয়া বলেন, ওইদিন আমি বাইক যোগে গ্রাম থেকে শহরের দিকে যাচ্ছিলাম পথিমধ্যে আরশি খাতুন আমার পথরোধ করে আমার মটরবাইকে ওঠার জন্য অনুরোধ করলে আমি তাকে তুলে নিয়ে রওনা দেই। কিন্তু গ্রামের অদুরে গিয়ে সে আমার বাইক থেকে নেমে যায়। সে এখন কোথায় আছে আমি কিছুই জানি না। সে নিখোঁজ হওয়ার পর গ্রামের লোকজন বলাবলি করছে আরশি ও ফরহাদের প্রেমের সম্পর্ক ছিল তাই তারা ঢাকা শহরে পালিয়ে গিয়ে বিয়ে করে সংসার করছে। এমনকি সে তার বাবা মার সঙ্গেও নিয়মিত যোগাযোগ রাখছে। অথচ, আমি তাকে বাইকে তুলে নেওয়ার অপরাধে তার বাবা আমার নামে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে। এক প্রশ্নের জবাবে দুলাল মিয়া বলেন, আমি তো আরশি খাতুনকে জোর করে আমার বাইকে তুলে নেইনি। আমার গ্রামের মেয়ে বলে তার অনুরোধ রাখতে গিয়ে তাকে বাইকে তুলেছি। এটাই হচ্ছে আমার অপরাধ! বদরগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) শাহীন আলম বলেন, বাদীর অভিযোগ পেয়েছি। তদন্তের জন্য একজন কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। পরে ওই অভিযোগের তদন্তকারী কর্মকর্তা বদরগঞ্জ থানার এসআই প্রণয় কুমার সাংবাদিকদের বলেন, ওই ব্যাপারে তদন্ত চলছে, এর চেয়ে বেশি কিছু বলা যাবেনা।
শেয়ার করুন :