Home » » ঠাকুরগাঁওয়ে তিন এমপি, ডিসি এসপি নিজেরা উপস্থিত থেকে বিয়ে দিলেন দুই এতিমের

ঠাকুরগাঁওয়ে তিন এমপি, ডিসি এসপি নিজেরা উপস্থিত থেকে বিয়ে দিলেন দুই এতিমের

আজম রেহমান,ঠাকুরগাঁও ব্যুরো,চিলাহাটি ওয়েব : এতিমখানায় বেড়ে ওঠা ও লেখাপড়া শেখা দুই এতিম যুবক যুবতীর বিয়ে নিজেরা উপস্থিত থেকে দিলেন জেলার তিন এমপি, জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার।বুধবার বিকেলে ঠাকুরগাঁও জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের উদ্যোগে জেলা সরকারি শিশু পরিবারে অত্যন্ত ধুমধাম করে বিয়ে সম্পন্ন হয় বিপু ও সুমনা জুটির। বৃহষ্পতিবার দুপুর থেকে বিপুর গ্রামেএ বাড়িতে এ জুটির সংসার শুরু হয়। সুমনা নামটি ঠাকুরগাঁও সরকারি শিশু পরিবারের খাতায় লেখা আছে। ৩ দিন বয়সের একটি শিশুকে রাজশাহীতে কুড়িয়ে পেয়ে এলাকাবাসী ঠাকুরগাঁও সরকারি শিশু পরিবারে (বালিকা) রেখে যায়। এখানে শিশুটির নাম দেওয়া হয় সুমনা। এই শিশু পরিবারে শিশু থেকে যৌবনে পদার্পন করেন সুমনা। অপরদিকে শবদলহাট ফজিলাতুন নেছা সরকারি শিশু পরিবারে (বালক) শিক্ষা গ্রহণ করেন বিপু ইসলাম। বুধবার বিকেলে প্যান্ডেল,সাজসজ্জা, আলোর ফোয়ারাসহ ঠাকুরগাঁও জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের উদ্যোগে জেলা সরকারি শিশু পরিবারে অত্যন্ত ধুমধাম করে বিয়ে সম্পন্ন হয় বিপু ও সুমনা জুটির। ঠাকুরগাঁও জেলা সরকারি শিশু পরিবারের (বালিকা) সুমনা বেগমের সঙ্গে শবদলহাট ফজিলাতুন নেছা সরকারি শিশু পরিবারের (বালক) প্রাক্তন নিবাসী বিপু ইসলামের (বর্তমান জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের অফিস সহকারী পদে নিয়োজিত) আনুষ্ঠানিক বিয়েটিকে একটি সফল অনুকরণীয় মানবিক উদ্যোগের দৃষ্টান্ত হিসেবে দেখছেন ঠাকুরগাঁওবাসী। বিয়ের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য রমেশ চন্দ্র সেন এমপি, মহিলা সংরক্ষিত আসনের এমপি সেলিনা জাহান লিটা, ঠাকুরগাঁও-৩ আসনের এমপি অধ্যাপক ইয়াসিন আলী এমপি,জেলা প্রশাসক মো. আখতারুজ্জামান, পুলিশ সুপার ফারহাত আহমেদ, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সাদেক কুরাইশীসহ শহরের গণ্যমান্য অসংখ্য ব্যক্তিবর্গ। সুমনা ও বিপুর চার লাখ এক টাকা দেনমোহর ধার্য করা হয়। অনুষ্ঠানে বর ও কনে পক্ষের অভিভাবকের দায়িত্ব পালন করেন যথাক্রমে জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের উপপরিচালক আবু বক্কর সিদ্দীক ও উপ-তত্ত্বাবধায়ক সাইয়েদা সুলতানা। অনুষ্ঠানের শুরুতে শিশু পরিবারের সকল নিবাসী আমন্ত্রিত অতিথিদের স্বাগত জানায়। জেলায় এই প্রথম এমন একটি উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন সর্বশ্রেণীর পেশাজীবীগণ। উলে¬খ্য, কিছুদিন আগে জেলা প্রশাসন অফিসে চাকরি নেওয়ার জন্য জেলা প্রশাসকের দফতরে হাজির হন সরকারি শিশু পরিবারের (বালক) ছাত্র বিপু। তখন জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে বিপুর কাছে প্রস্তাব রাখা হয়, একটা চাকুরি দিলে তুমি একটা এতিম মেয়েকে বিয়ে করবে কিনা। বিপু জেলা প্রশাসকের প্রস্তাবে রাজি হয়ে যায়। সে সময় বিপু ও সুমনার বয়স কম থাকায় বিয়ের তারিখ চূড়ান্ত করা হয়নি। তবে সে প্রস্তাবটি এখন গ্রহণ করে শুভ বিবাহ সম্পন্ন করলেন বিপু। বিপু ও সুমনা বৃহষ্পতিবার দুপুরে টেলিফোনে এই প্রতিবেদক কে জানান, তারা খুশী,সবার কাছে কৃতজ্ঞ এবং নতুন সুখী জীবনের জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়াপ্রার্থী।
শেয়ার করুন :