Home » , , » পার্বতীপুরের বিএনপি নেতা মামুন ও তার স্ত্রী সাথী হত্যার রহস্য উদঘাটন--দুই ঘাতক গ্রেফতার

পার্বতীপুরের বিএনপি নেতা মামুন ও তার স্ত্রী সাথী হত্যার রহস্য উদঘাটন--দুই ঘাতক গ্রেফতার

চিলাহাটি ওয়েব ডটকম News Editor : 19 April, 2018 | 10:49:00 AM

চিলাহাটি ওয়েব স্পেশাল : নীলফামারীর সৈয়দপুরে আলোচিত পার্বতীপুর উপজেলার বিএনপি নেতা মামনুর রশিদ মামুন (৩৫) ও তার দ্বিতীয় স্ত্রী সাথী আরা (২৭) জোড়া খুনের মামলায় দুই ঘাতককে গ্রেফতার করেছে সৈয়দপুর থানা পুলিশ। গতকাল ১৮ এপ্রিল বুধবার দুপুরে পুলিশ সুপার সম্মেলন কক্ষে প্রেস বিফ্রিংয়ে পুলিশ সুপার মোঃ আশরাফ হোসেন এ তথ্য জানান। প্রেস বিফ্রিংয়ে আরো উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অশোক কুমার পাল, আবুল বাশার আতিকুর রহমান আতিক, সৈয়দপুর থানার অফিসার্স ইনচার্জ শাহজাহান পাশা ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই আঃ আজিজ। পুলিশ সুপার বলেন, ওই মামলার দুই আসামী শিবলী সাদিক ওরফে (প্রদীপ) ও সাগর ঢাকায় অবস্থান করছে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সৈয়দপুর থানা পুলিশ ঢাকার ডেমরায় থেকে তাদের গ্রেফতার করে। এর আগে সৈয়দপুরের চৌমহনী হতে অপর খুনি নূর মোহাম্মদ সুমন ওরফে (লাবু)কে গ্রেফতার করে থানা পুলিশ। এ নিয়ে এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় গ্রেফতারকৃতের সংখ্যা ৩ জন। পুলিশ সুপার গ্রেফতারকৃত দুইজনের ভাষ্যমতে প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেন, নীলফামারী জেলার সৈয়দপুর শহরের জসীম বাজার এলাকায় ডাঃ হোসেন তৌফিক ইমাম এর বাসায় ভাড়া থাকতেন পরিবার নিয়ে শিবলী সাদিক পরিবারসহ। মামুনুর রশীদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের এক সময় কর্মচারী ছিল শিবলী সাদিক। সেই সুবাদে ওই বাসায় মাঝে মধ্যে তার ২য় স্ত্রীকে নিয়ে যাতাযাত করত মামুন। ঘটনার আগের দিন রাতে মামুন তার স্ত্রী সাথীকে নিয়ে ওই বাড়ীতে রাত্রী যাপন করে। ২০১৭ সালের ২৯ নভেম্বর ঘটনার দিন মামুন সাথীকে রেখে বাহিরে যায়। এই সুযোগে ওই তিন খুনি সাথীকে জিম্মি করে মামুনের কাছে অপহরণের নাটক করতে বলে ৩০ লক্ষ টাকার দাবী করে। তাদের কথায় রাজি না হয়ে চিৎকার করলে সাথীকে বালিশ চাপা ও ধারালো ছোড়া দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে। পরে মামুন ফিরে আসলে তাকেও অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে উল্লেখিত টাকা দাবী করে। টাকা না দিলে হত্যা করা হবে বলে হুমকি দেয়। এসময় মামুন পালানোর চেষ্টা করলে তাকেও আটকিয়ে ছোড়া দিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করলে সে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। পরে তার গলা কেটে মৃত্যু নিশ্চিত করে মামুনের মটরসাইকেল নিয়ে ওই তিন খুনি পালিয়ে যায়। মূলত টাকার কারণেই তাদেরকে খুন করেছে বলে গ্রেফতারকৃতরা পুলিশকে জানিয়েছে। উল্লেখ্য, মামুনুর রশিদ মামুন দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর উপজেলার সরকারপাড়া গ্রামের মৃত আলহাজ্ব মনসুর আলীর ছেলে। মামুন পার্বতীপুর উপজেলা বিএনপি’র যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক, বিশিষ্ট তেল পাম্প ব্যবসায়ী। সাথী আরা রংপুরের একটি কলেজের অনার্সের শিক্ষার্থী ও পার্বতীপুর পোড়াভিটা গ্রামের মহেবুল ইসলামের মেয়ে। এ খুনের ঘটনা নিয়ে দিনাজপুর পার্বতীপুরে ব্যাপক আন্দোলন হওয়ায় ঘটনাটি আলোচিত হয়ে পড়ে। পরে গত বছরের ৩০ নভেম্বর মামুনের বড় ভাই আব্দুল রশীদ বাদী হয়ে সৈয়দপুর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। মামলা নং-২১। পুলিশ দীর্ঘ দিন অভিযান চালিয়ে ওই তিন খুনিকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।
শেয়ার করুন :