Home » » বদরগঞ্জে শিক্ষার্থীর গোপনাঙ্গে পেটানোর অভিযোগ

বদরগঞ্জে শিক্ষার্থীর গোপনাঙ্গে পেটানোর অভিযোগ

চিলাহাটি ওয়েব ডটকম : 02 January, 2018 | 11:12:00 PM

আকাশ রহমান,বদরগঞ্জ প্রতিনিধি,চিলাহাটি ওয়েব : রংপুরের বদরগঞ্জে মাদরাসার শিক্ষকের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীর গোপনাঙ্গে পেটানোর গুরুতর অভিযোগ উঠেছে।
আজ মঙ্গলবার উপজেলার লোহানীপাড়া ইউনিয়নের উত্তর মাধাইখামার উত্তর কচুয়া নুরানী হাফিজিয়া এতিমখানা মাদরাসায় এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর উন্নত চিকিৎসার জন্য গুরুতর আহত শিক্ষার্থীকে রংপুর প্রাইম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এদিকে শিক্ষার্থীকে পেটানোর পুরো ঘটনাটি ধামা চাপা দিতে মরিয়া হয়ে উঠেছে মাদরাসা কর্তৃপক্ষ। সেই সাথে তারা আহত শিক্ষার্থীর অসহায় পিতাকে থানায় অভিযোগ করতে বাধাগ্রস্থ করছে।
ভুক্তভোগীর শিক্ষার্থীর পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা বলে জানা যায়, উপজেলার উত্তর কচুয়া মাধাই খামার গ্রামের দিনমজুর মোশারফ হোসেন ৫/৬মাস পুর্বে আরবি শিক্ষা দানের জন্য শাকিল আহম্মেদকে (১২) ওই হাফিজিয়া মাদরাসায় ভর্তি করা হয়।
আজ মঙ্গলবার দুপুরে ওই মাদরাসার সহকারী শিক্ষক মামুনুর রশিদ ওই শিক্ষার্থী শাকিলকে কিছু জ্বালানী সংগ্রহের জন্য নির্দেশ দেন। কিন্তু নির্দেশ অনুযায়ী জ্বালানী সংগ্রহ করতে একটু দেরি হওয়ায় শিক্ষক মামুন ক্ষিপ্ত হয়ে একটি জ্বালানী খড়িয়ে দিয়ে শিক্ষার্থীর গোপনাঙ্গে এলোপাতাড়ী মারপিট করেন। এতে করে শিক্ষার্থীর অন্ডকোষে স্বজোরে আঘাত লেগে তার অন্ডকোষ বাইরে বের হয়ে আসে। বিষয়টি জানাজানি হলে গ্রামবাসী মুমুর্ষ অবস্থায় ওই শিক্ষার্থীকে উদ্ধার করে স্থানীয় নাগেরহাট বন্দরের একজন পল¬ী চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যায়।
 কিন্তু সেখানে শিক্ষর্থীর শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য দ্রুত রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এবিষয়ে আহত শিক্ষার্থীর বাবা মোশারফ হোসেন অভিযোগ করে বলেন, ঘটনার পর আমি কমিটির সভাপতি ও সদস্যদের কাছে আমার ছেলেকে পেটানোর বিচার চাইতে গিয়েছিলাম। কিন্তু তারা ওই পাষন্ড শিক্ষকের বিচার না করে উল্টো আমাকে হুমকী দিয়ে শাসিয়ে বাড়ীতে পাঠিয়ে দেন। এমনকি তারা আমাকে কোথাও কোন অভিযোগ করতে বার বার নিষেধ করেছেন। কমিটির সদস্যদের ভয়ে আমি কোথাও অভিযোগ করার সাহস পাচ্ছিনা।
এবিষয়ে উত্তর কচুয়া নুরানী হাফিজিয়া এতিমখানা মাদরাসা কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব আজিজুল হক মোবাইল ফোনে বলেন, রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ওই আহত শিক্ষার্থীর উন্নত চিকিৎসা চলছে। শিক্ষার্থী সুস্থ হলে বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়ভাবে মিমাংসা করা হবে। বদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রাশেদুল হক বলেন, ওই শিক্ষার্থী পিতাকে লিখিত অভিযোগ করতে বলেন বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে।