Home » » ডিমলার বহুল প্রত্যাশিত সড়ক কাজের অনুমোদন

ডিমলার বহুল প্রত্যাশিত সড়ক কাজের অনুমোদন

চিলাহাটি ওয়েব ডটকম : 20 December, 2017 | 11:49:00 PM

মাজহারুল ইসলাম লিটন,ডিমলা প্রতিনিধি,চিলাহাটি ওয়েব : ডিমলার বহুল প্রত্যাশিত ভাদুর দরগা-ডিমলা সড়ক কাজের অনুমোদন দিয়েছে। সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রনালয়ের সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ কতৃক রংপুর সড়ক জোনের পিএমপি(সড়ক-মেজর) ২য় দফায় ভাদুরদরগা হইতে ডিমলা পয্যন্ত ৯.৫০ কিলোমিটার সড়ক মেরামত কাজের অনুমোদন দেয়া হয়। জরাজীর্ন রাস্তার কারনে এখন ঢাকা কোচ ছাড়া লোকাল বাস চলাচল বন্ধ হযে পড়েছে। মেরামতের অভাবে দীর্ঘদিন ধরে বেহালদশায় রয়েছে নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলার ভাদুরদরগাঁ হয়ে ডিমলা উপজেলা শহরের বাজার পর্যন্ত প্রায় ১০ কিলোমিটার আঞ্চলিক প্রধান সড়কটি। 
এতে ওই সড়কে চলাচলে সীমাহীন দুর্ভোগে পড়েছেন সাধারন মানুষজনসহ বাস যাত্রীসহ যানবাহনের চালকেরা। এখানে চলাচলের একমাত্র মাধ্যম এখন অটোবাইক। সড়ক ও জনপথ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, ২০১৫-১৬ অর্থ বছরে টেন্ডারের মাধ্যেমে ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এই আঞ্চলিক সড়কটি মেরামতের কাজ পেয়েছিল মেসার্স মাসুমা বেগম এন্টারপ্রাইজ। কাজ অসমাপ্ত রেখে চলে যাওয়ায় ওই ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানকে ৪৩ লাখ টাকা জরিমানা করা হয় বলে জানিয়েছে সড়ক ও জনপদ বিভাগ। সুত্র মতে, সাড়ে ৭ কোটি টাকা ব্যয়ে কাজটি স¤পাদনের জন্য ২০১৫ সালের ১০ ডিসেম্বর রংপুরের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স মাসুমা বেগমকে কার্যাদেশ দেওয়া হয়। কাজটি শেষ হওয়ার কথা ছিল ২০১৬ সালের জুন মাসে। কিন্তু কাজের পরিধি বাড়ায় বরাদ্দ বাড়িয়ে ৮ কোটি ৩২ লাখ টাকা করে কাজটি স¤পাদনের জন্য সময়সীমা দেয়া হয় চলতি বছরের জুন মাস পর্যন্ত। জানা যায়, ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানটি টুনিরহাট হতে ডিমলা উপজেলা পোষ্ট অফিস মোড় পর্যন্ত ১২ ফিট প্রস্থ্যের ৫ কিলোমিটার সড়কের কাজ সমাপ্ত করে। কিন্তু, হঠাৎ করে কোনো কিছু না জানিয়েই(নভেম্বর)মাসে কাজ বন্ধ করে দেয় ওই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। 
এখন বাকী ১০ কিলোমিটার ভাদুরদরগা পর্যন্ত ১৮ ফিট প্রস্থ্যের সড়কটির আদৌ কাজ শুরু করা হয়নি। ফলে নাজেহাল অবস্থা পড়ে আছে সড়কটির। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে শত শত যানবহন। প্রতিদিন ঘটছে ছোট বড় নানা দুর্ঘটনা। এক সময় এ রাস্তা পাড়ি দিতে সময় লাগতো ১০ থেকে ১৫ মিনিট। আর এখন লাগছে ৪০ থেকে ৫০ মিনিট। বিভিন্ন যানবাহনের চালক ও মালিকরা বলছে ওই সড়কে গাড়ি চালালে যন্ত্রাংশের ক্ষতি হচ্ছে প্রতিনিয়ত। এছাড়া দুর্ঘটনাতো লেগেই আছে। রাস্তায় নষ্ট দেখিয়ে ডিমলা রংপুর রাস্তায় লোকাল পরিবহন চলে না। শুধুমাত্র ঢাকাগামী পরিবহন চলাচল করছে। নীলফামারী-১(ডোমার-ডিমলা)আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আফতাব উদ্দিন সরকার বলেন, ভাদুরদরগা হতে ডিমলার টুনিরহাট পয্যন্ত ২০১৫-১৬ অর্থ বছরে টেন্ডারের মাধ্যেমে রংপুরের একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান সড়কটির কাজ পায়। এবং টুনিরহাট হইতে ডিমলা পয্যন্ত ৫ কিলোমিটার রাস্তার কাজ সম্পন্ন করে বাকী কাজ ফেলে রেখে ওই ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানটি পালিয়ে যায়। 
পরবর্তিতে ডিমলার মানুষের চরম দূর্ভোগের কথা ভেবে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রনালয়ে যোগাযোগ করলে গত ১৪ ডিসেম্বর ২য় দফায় সড়কটি মেরামতের জন্য অনুমোদন দেয়া হয়। সড়কটি মেরামতের জন্য দ্রুত অনুমোদন দেয়ায় সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রীকে ডিমলা বাসীর পক্ষ হতে অভিনন্দন জানাচ্ছি। নীলফামারী সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী হামিদুর রহমান বলেন, গত ১৪ ডিসেম্বর সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রনালয়ের সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ কতৃক রংপুর সড়ক জোনের পিএমপি(সড়ক-মেজর) ২য় দফায় ভাদুরদরগা হইতে ডিমলা পয্যন্ত ৯.৫০ কিলোমিটার সড়ক মেরামত কাজের অনুমোদন দেয়া হয়। এতে ব্যয়ের পরিমান ধরা হয়েছে ১৪ কোটি ১৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা। অতি দ্রুত টেন্ডার প্রক্রিয়া শেষে ঠিকাদার নিয়োগের মাধ্যমে সড়কটির মেরামত কাজ সম্পন্ন করা হবে।