Home » » বদরগঞ্জে মামলা তুলে নিতে বাদীর বাড়ীতে সন্ত্রাসী হামলায় আহত-৩

বদরগঞ্জে মামলা তুলে নিতে বাদীর বাড়ীতে সন্ত্রাসী হামলায় আহত-৩

চিলাহাটি ওয়েব ডটকম : 19 December, 2017 | 12:36:00 AM

আকাশ রহমান, বদরগঞ্জ প্রতিনিধি,চিলাহাটি ওয়েব : রংপুরের বদরগঞ্জে আলোচিত সায়েদা বেওয়া হত্যাকান্ডের মুল আসামীরা এখনো গ্রেফতার হয়নি। মামলা তুলে নিতে বাদীর বাড়ীতে সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর করেছে। এসময় ওই মামলার সাক্ষীসহ ৩জন আহত হয়। আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় বদরগঞ্জ থানায় পৃথক দুটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। লিখিত অভিযোগে জানা যায়, উপজেলার লোহানীপাড়া ইউনিয়নের কাঁচাবাড়ী বানিয়াপাড়া গ্রামের কৃষক অহিদুল হকের সাথে দীর্ঘদিন ধরে প্রতিবেশী তাজকুল ইসলামের জমিসংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছে। ওই বিরোধের জের ধরে গত ১৫অক্টোবর তাজকুল ইসলামের ভাড়াটে সন্ত্রাসী শিবির নেতা ইউনুস আলী অহিদুল হকের বোন সায়েদা বেওয়াকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে। এ ঘটনায় অহিদুল হকের ছেলে সাবেক ইউপি সদস্য মমিনুল ইসলাম বাদী হয়ে ইউনুস আলীসহ ২২জন ব্যক্তিকে আসামী করে বদরগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর থেকে সংঘবদ্ধ আসামীরা হত্যা মামলাটি তুলে নেওয়ার জন্য মামলার বাদীকে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ভাবে হুমকী দিয়ে আসছে। তাতেও কোন কাজ না হওয়ায় গত শুক্রবার (১৫ডিসেম্বর) দুপুরে আসামীরা একটি ব্যানার তৈরি করে বাদীর বাড়ীর সামনে গিয়ে মামলা তুলে নেওয়ার জন্য বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করে। বিক্ষোভ চলাকালে আসামীরা বাদীর বাড়িতে হামলা চালিয়ে বাড়ীঘর ভাংচুর ও পরিবারের সদস্যদের মারধর করে। এসময় হামলাকারীদের দেশীয় অস্ত্রের আঘাতে নিহত সায়েদা বেওয়ার পুত্রবধূ লাইলী বেগম, ওই মামলার স্বাক্ষী আব্দুল মতিন ও তার তৃতীয় শ্রেণিতে পড়–য়া ছেলে সাহান বাবু গুরুতর আহত হয়। খবর পেয়ে বদরগঞ্জ থানার এসআই আতিক সঙ্গীয় ফোর্সসহ ঘটনাস্থলে পৌছিলে উত্তপ্ত পরিস্থিতি শান্ত শান্ত হয়। এ ব্যাপারে হত্যা মামলা বাদী মমিনুল ইসলাম পুনরায় বাদী হয়ে ১১জনকে আসামী করে বদরগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। এছাড়াও ওই মামলার স্বাক্ষী আনিছুল হক আসামীদের বিরুদ্ধে একই থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন। এবিষয়ে বাদী মমিনুল ইসলাম বলেন, আসামীরা গ্রেফতার না হওয়ায় আমাদের উপর নানা রকম অত্যাচার করছে। এমনকি তারা মামলাটি তুলে নিতে বিভিন্ন ভাবে আমাদেরকে হুমকী ধামকি দিয়ে আসছে। বদরগঞ্জ থানার এসআই আতিক মোবাইল ফোনে বলেন, পরিস্থিতি আপাত শান্ত। তবে যে কোন সময় সেখানে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশংকা রয়েছে বলে ওসি স্যারকে এই বিষয়টি অবগত করা হয়েছে।