Home » » বদরগঞ্জে সরকারী সম্পত্তিতে রাইচমিল নির্মাণ ॥ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ

বদরগঞ্জে সরকারী সম্পত্তিতে রাইচমিল নির্মাণ ॥ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ

চিলাহাটি ওয়েব ডটকম : 19 November, 2017 | 11:33:00 PM

আকাশ রহমান, বদরগঞ্জ প্রতিনিধি,চিলাহাটি ওয়েব : রংপুরের বদরগঞ্জে সরকারী জমি দখল করে রাইচ-মিল নির্মাণ করছে একটি প্রভাবশালী মহল। এ ঘটনায় এলাকাবাসী মিলের নির্মাণ কাজ বন্ধ করাসহ ভুমিদস্যুদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য উপজেলা নির্বাহী কার্যালয়সহ বিভিন্ন দপ্তরে গণস্বাক্ষর সম্বিলিত অভিযোগ দাখিল করেন। লিখিত অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, উপজেলার কালুপাড়া ইউনিয়নের বৈরামপুর পাইকাড়পাড়া গ্রামের মৃত আজিজুল হকের ছেলে সাজু পাইকাড় একজন ভুমিদস্যু। তিনি সম্প্রতিকালে এলাকার একটি মহলের প্ররোচনায় বৈরামপুর বাজারের পার্শ্বে সরকারী জমি দখল করে সেখানে রাইচ মিল নির্মাণ করছেন। সেইসাথে ওই জমির ভুয়া কাজপত্র দিয়ে পল্লী বিদ্যুত সংযোগের জন্য আবেদন করেছেন। এই বিষয়টি জানাজানি হলে এলাকাবাসী তার নির্মাণকাজ বন্ধ করার জন্য তাকে নিষেধ করলে তিনি এলাকার লোকজনকে হুমকী প্রদান করেন। যার ফলে এলাকাবাসী একত্রিত হয়ে তার রাইচমিলের কার্যক্রম বন্ধ করে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে উপজেলা নির্বাহী অফিসসহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দাখিল করেন। এবিষয়ে, গতকাল শনিবার অভিযোগকারী আলতাব হোসেন বলেন, নিজের জায়গা জমির উপর ব্যবসা করার অধিকার সবার আছে, কিন্তু সরকারী জমি দখল করে প্রতিষ্ঠান নির্মাণ করা কারোর অধিকার নেই যেটা সাজু মিয়া টাকার জোরে করেছেন। আমরা তাকে সরকারী জমিতে রাইচমিল নির্মাণ করতে বাধা নিষেধ করলে তিনি আমাদের প্রতি চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দেন। তাই আমরা তার এই অবৈধ নির্মাণ কাজ কন্ধ করাসহ তার বিরুদ্ধে আইনানুগ গ্রহণ করতে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের দপ্তরসহ (ইউএনও স্যার) বিভিন্ন দপ্তরে গণস্বাক্ষর সম্বলিত অভিযোগ দাখিল করেছি। আশা করি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ বিষয়টি তদন্তপুর্বক অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। তবে অভিযুক্ত সাজু মিয়া বলেন, এই এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে সরকারী জমির উপর আরো রাইচমিল রয়েছে আগে ও গুলো বন্ধ করা হোক তারপর আমার রাইচমিলের কার্যক্রম বন্ধ করব। রংপুর পল্লী বিদ্যুত সমিতি-২ বদরগঞ্জ জোনাল অফিসের দায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ শওকত হোসেন বলেন, সাজু মিয়ার রাইচমিলে বিদ্যুত সংযোগ না দেওয়ার জন্য এলাকাবাসীর গণস্বাক্ষর সম্বলিত একটি অভিযোগ পাওয়ার পর তদন্তের জন্য একজন কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তদন্ত রিপোর্ট হাতে পাওয়ার আগে এখনো কিছু বলা যাচ্ছেনা। বদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: রাশেদুল হক মোবাইল ফোনে সাংবাদিকদের বলেন, তদন্তের জন্য কালুপাড়া ইউনিয়নের তহশিলদারকে পাঠানো হয়েছিল। মিল মালিকের বৈধ কাগজপত্র না থাকায় রাইচমিলের নির্মাণ কাজ বন্ধ করতে বলা হয়েছে। এখন কাজ বন্ধ আছে।