Home » » রংপুরে বিএনপি নেতাদের গণপদত্যাগের হুমকি

রংপুরে বিএনপি নেতাদের গণপদত্যাগের হুমকি

চিলাহাটি ওয়েব ডটকম : 29 May, 2017 | 11:30:00 PM

হারুন উর রশিদ সোহেল, রংপুর প্রতিনিধি,চিলাহাটি ওয়েব : রংপুর মহানগর বিএনপির সদ্য বিলুপ্ত কমিটির সাধারণ সম্পাদক সামসুজ্জামান সামুকে বাদ দিয়ে নতুন কমিটি অনুমোদন করায় তৃণমূলের নেতা কর্মীদের মাঝে চরম ক্ষোভ ও হতাশা বিরাজ করছে। 
এরই মধ্যে নতুন কমিটিকে ঘিরে শুরু হয়েছে তীব্র আলোচনা-সমালোচনা। কোথাও কোথাও গণপদত্যাগের হুমকির গুঞ্জনে ফের নতুন করে মাথা চাড়া দিয়েছে উঠেছে বিএনপি অভ্যন্তরীণ কোন্দল। 
জানা গেছে, সামসুজ্জামান সামুকে সভাপতি না করায় তৃণমুলের বিএনপিসহ ছাত্রদল, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, ওলামা দল, শ্রমিকদল, কৃষক দল, তরুণ দল, আইনজীবি ফোরাম, জাসাস, জিয়া পরিষদসহ বিএনপির সর্বস্তরের নেতা কর্মীদের মাঝে অসন্তোষ বিরাজ করছে। এদিকে গত ২৬ মে শুক্রবার মোজাফ্ফর হোসেনকে সভাপতি ও শহিদুল ইসলাম মিজুকে সাধারন সম্পাদক করে রংপুর মহানগর বিএনপির কমিটি অনুমোদন করেছে বিএনপি মহাসচিব মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। নতুন কমিটি অনুমোদনের পর তৃণমুলের নেতাকর্মীরা জানান, বিএনপির রংপুরের নীতি নির্ধারকরা বলেছেন মুক্তিযোদ্ধা মোজাফফর হোসেনকে কেন্দ্রীয় পদে রেখেই সভাপতি পদে সামসুজ্জামান সামুকে পদায়ন করলেই রংপুর বিএনপিতে আর কোন কোন্দল থাকবে না। 
আগামী মেয়র নির্বাচনসহ জাতীয় পার্টির স্থান দখল করে নিয়ে রংপুর হবে বিএনপির সাংগঠনিক দুর্গ। বিষয়টি দ্রুত চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া, মহাসচিব মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, এবং সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুল হাবিব দুলুর প্রতি দ্রুত পদক্ষেপ নেয়ার দাবি জানিয়েছেন রংপুর বিএনপির নেতাকর্মী ও নীতিনির্ধারকরা। অনুমোদিত নতুন মহানগর কমিটির ৫নং সহ-সভাপতি এ্যাডভোকেট রেজেকা সুলতানা ফেন্সি জানান, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোজাফফর হোসেন একজন বিজ্ঞ রাজনীতিক। তিনি কেন্দ্রীয় কমিটির কুটির শিল্প বিষয়ক সম্পাদক এবং মুক্তিযোদ্ধা দলের সহ সভাপতি। তাকে যদি কেন্দ্রে আরও কোন ভালো পদ দিয়ে মহানগর সভাপতি হিসেবে সামসুজ্জামান সামুকে পদায়ন করা যেতো, তাহলে রংপুর বিএনপিতে আর কোন কোন্দল থাকতো না। তৃণমুলের নেতাকর্মীরা জানান, রংপুর বিএনপি মানেই সামু। আন্দোলন সংগ্রাম মানেই সামু। 
রংপুর বিএনপিকে রাজপথে নেতৃত্ব দেয়ার মতো নেতাই হচ্ছে সামু। সামুর বিকল্প নেই। তাকে ছাড়া রংপুর বিএএনপি অচল। রংপুর মহানগর ও জেলা বিএনপির কমিটিতে সামুকে মূল্যায়ন না করায় পদত্যাগ করতে মানসিক প্রস্তুত রংপুরের জেলা ও মহানগর বিএনপির সহ বিভিন্ন থানা ও ওয়ার্ড বিএনপির ১৩২ জন বিএনপির পদধারী নেতাসহ প্রায় ৫-৭ হাজার নেতাকর্মী। সেই সাথে মহানগর ও জেলা ও ওয়ার্ড, থানার যুবদল ছাত্রদল, স্বেচ্ছাসেবক, ওলামাদল, কৃষকদল, আইনজীবী ফোরাম, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের ৫ হাজার জন। যেকোন সময় রাজনীতি থেকে বিদায় ঘোষণা আসতে পারে। উল্লেখ্য, সদ্য ঘোষিত রংপুর মহানগর বিএনপির কমিটিতে সামসুজ্জামান সামুকে সহ-সভাপতি করা হয়েছে।