Home » » ২০ গ্রামের মানুষের স্বপ্ন বাস্তবায়ন

২০ গ্রামের মানুষের স্বপ্ন বাস্তবায়ন

চিলাহাটি ওয়েব ডটকম : 17 October, 2016 | 9:13:00 PM

দেলোয়ার হোসেন বাদশা, চিরিরবন্দর প্রতিনিধি,চিরাহাটি ওয়েব : দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান অধিদপ্তরের আওতায় ২০১৫-১৬ অর্থ বছরে ৬০ লক্ষ ৪৬ হাজার ৯০৯ টাকা ব্যয়ে নির্মিত দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার ১০নং পুনট্টি ইউনিয়নের গমিরাহাটের সংযোগ সড়কে ভেলামতি নদীর উপর ব্রীজ নির্মান হওয়ায় এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবী পূরনসহ দু’পারের মানুষের মধ্যে নতুন করে সেতু বন্ধন সৃষ্টি করেছে। 
স্থানীয়রা জানান, এক সময় ভেলামতি নদীর এই ঘাটে ব্রীজ না থাকায় উপজেলার গোবিন্দপুর, বিশ্বনাথপুর, দোয়াপুর, তুলশীপুর, পুনট্টি, মথুরাপুর, করঞ্জি, পাটাইকুড়ি কালীগঞ্জ, ভবানীপুর, কেশবপুর, সিন্দুরা, হরানন্দপুরসহ আশেপাশের ২০ গ্রামের প্রায় লক্ষাধিক মানুষের চলাচলের অসুবিধাসহ স্কুল কলেজ মাদ্রাসাগামী শিক্ষার্থীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হতো। 
শুধু তাই নয় এসব গ্রামে ২০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৫টি দাখিল মাদরাসা, ছোট বড় সব মিলিয়ে ৭টি হাটবাজারসহ পোষ্ট অফিস রয়েছে। আরএসব প্রতিষ্ঠানের সাথে যারা সম্পৃক্ত তাদেরকেও অনেক কষ্ট করতে হয়েছে। গ্রামগুলির অধিকাংশ গ্রাম কৃষিপ্রধান হওয়ায় মেীসুমী ফসলসহ ধান উৎপাদনে উপজেলার শীর্ষে। যোগাযোগ ব্যবস্থা না থাকায় কৃষকরা তাদের উৎপাদিত কৃষিপন্য ভারী যানবাহনে করে জেলার সবচেয়ে বড় হাট আমবাড়ী ও অন্যান্য বাজারগুলোতে নিয়ে যেতে না পারায় বাড়ীতে সস্তা দামে বিক্রি করতো। ফলে তারা আর্থিকভাবে ক্ষতির সম্মুখীন হতো। 
তারা আরও জানায়, ব্রীজের অভাবে একপারের মানুষ অন্যপারের মানুষের সাথে আতœীয়তার সম্পর্ক করতেও অনীহা প্রকাশ করতো। গোবিন্দপুর গ্রামের মোঃ আজিজুল হক শাহ জানান, ভেলামতি নদীতে ব্রীজ নির্মান হওয়ার ফলে স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসাগামী শিক্ষার্থীদের কষ্ট লাঘবসহ ব্যবসা বাণিজ্যে নতুন করে আশার সঞ্চার জাগিয়ে তুলেছে। গমিরাহাট গুচ্ছগ্রামের আজিজার, হামিদুল, আব্দুল ওয়াহাব বলেন, এখন তাদের উৎপাদিত শাক-সব্জিসহ অন্যান্য কৃষিপন্য আমবাড়ীহাট ও ফুলবাড়ী আড়তে পৌছাতে আর দীর্ঘ পথ পাড়ি দিতে হবেনা। এতে করে তাদের পরিবহন খরচ কম লাগবে ও সময় বাঁচবে। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ নুর-এ-কামাল ব্রীজের গুরত্ব তুলে ধরে বলেন, ব্রীজ নির্মানের ফলে এলাকার আপামর জনসাধারনের ভাগ্যের পরিবর্তনে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা একেএম মমিনুল হক জানান, শুধু ভেলামতি নদীতে ব্রীজ নয় উপজেলার বিভিন্ন নদীতে এই অর্থ বছরে এরকম আরো ১৫টি ব্রীজ নির্মান করা হয়েছে। এসব ব্রীজের সুবিধা উপজেলাবাসীর জন্য বর্তমান সরকারের উন্নয়ন পরিকল্পনার অংশের প্রতিফলন।